স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: বছরভর বিভিন্ন কর্মসূচি ও প্রচার অভিযান চালিয়েও এইডস সম্পর্কে মানুষের মন থেকে এখনও কুসংস্কার দূর করা যায়নি৷ আজও দক্ষিণ দিনাজপুরের বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলের মানুষের কাছে এইচআইভি আক্রান্তরা অচ্ছুৎ হয়েই রয়েছেন৷ কারও এইডস হয়েছে শুনলে বাড়িতে যাতায়াত ও তাঁর ছোঁয়া কোনও কিছুই ব্যবহার না করার ঘটনাও ঘটে চলেছে৷ শুক্রবার বিশ্ব এইডস দিবসের দিন এই কথাই জানালেন, খোদ মুখ্যস্বাস্থ্য অধিকারিক৷

এদিন অন্যান্য এলাকার পাশাপাশি দক্ষিণ দিনাজপুরেও পালিত হল বিশ্ব এইডস দিবস৷ সকালে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা স্বাস্থ্য ভবন প্রাঙ্গণ থেকে সচেতনতা মূলক শোভাযাত্রা বেড় করা হয়৷ শোভা যাত্রায় জেলা শাসক শরদ কুমার দ্বিবেদী মুখ্যস্বাস্থ্য আধিকারিক ডা:সুকুমার দে সহ বিভিন্ন সেচ্ছাসেবী সংগঠনের প্রতিনিধি ও নার্সিং ট্রেনিং কলেজের ছাত্রীরা সহ অনেকেই পা মিলিয়েছেন৷

বিশেষ এই দিনটি উপলক্ষে জেলা স্বাস্থ্য দফতরের উদ্যোগে বালুরঘাট নাট্যমন্দিরে সেমিনারেরও আয়োজন করা হয়েছে৷ সেমিনারে এইআইভি(পজেটিভ) তথা এইডস সম্পর্কে সচেতনতা মূলক আলোচনা ও নাটকও পরিবেশিত হয়েছে৷ নাটকের মূল বিষয় বস্তুই হল, সাধারণ মেলা-মেশায় এইডস কখনই ছোঁয়াচে না৷ এদিন দক্ষিণ দিনাজপুরের মুখ্যস্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ সুকুমার দে জানিয়েছেন, এইআইভি আক্রান্তদের সংগঠনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী জেলায় এই মুহূর্তে আক্রান্তদের সংখ্যাটা ৭০১জন৷ যাঁদের মধ্যে শিশুই রয়েছে ৩৫ জন৷

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আনুমানিক পরিসংখ্যানের চাইতেও এই এইডস আক্রান্তের সংখ্যাটা অর্ধেকেরও কম বলে তিনি জানিয়েছেন৷ জেলার সমস্ত গ্রামীণ হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলিতে আইসিটিসি পরীক্ষার ব্যবস্থা রয়েছে৷ এমনকি জেলার মোট ২৪৮টি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রেও গর্ভবতী মায়েদের এব্যাপারে রক্ত পরীক্ষা করা হয়৷ এইডস সম্পর্কে মানুষ এখন যথেষ্ট সচেতন বলা হলেও এব্যাপারে কুসংস্কার কিন্তু রয়েই গিয়েছে৷ এখনও গ্রামে গঞ্জে মানুষের মধ্যে এইডস আক্রান্তদের না ছোঁয়া এমনকি তাঁদের বাড়িতেও কেউ যেতে চান না বলেও মুখ্যস্বাস্থ্য আধিকারিক আক্ষেপ প্রকাশ করেছেন৷