স্টাফ রিপোর্টার,পটাশপুর: ফের উত্তপ্ত পূর্ব মেদিনীপুর জেলার পটাশপুর। আমপানের ক্ষতিপূরণ এবং স্বজন পোষনের অভিযোগে অব্যাহত। ফের আমপানের ক্ষতিপূরণবাবদ ত্রান দেওয়া নিয়ে এগরা- বাজকুল রাজ‍্য সড়কের পটাশপুর ১ নম্বর ব্লকের মতিরামপুর এলাকায় শুক্রবার় রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভে দেখালেন গ্ৰামের বাসিন্দারা।

এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে পটাশপুর ২ পঞ্চায়েতের সভাপতি চন্দন সাউ ঘটনাস্থলে আসলে বিক্ষোকারীরা তাঁকে ঘিরেও বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। এরপর পটাশপুর থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী ও এগরা মহকুমা পুলিশ আধিকারিক সেক আকতার আলি ঘটনাস্থলে এলে পুলিশের সঙ্গে খন্ডযুদ্ধ সৃষ্টি হয় এলাকার বাসিন্দাদের।

তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে বলে জানা গিয়েছে। এই ঘটনার জেরে বেশকয়েকজন বিক্ষোভকারী ও পুলিশকর্মী আহত হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

বিক্ষোকারী বাসিন্দাদের দাবি,”আমপান ঝড়ে আমাদের যে পরিমাণে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তাতে আমাদের থাকার মতো বাসস্থান নেই। পাশাপাশি ঝড়ে প্রচুর পরিমাণে পান বরজের ক্ষতি হয়েছে। কিন্তু এখনও পযর্ন্ত আমরা সরকার থেকে কোনও রকমে সাহায্য পাচ্ছি না।”

তাঁরা আরও বলেন,”আমপান ঘূর্ণিঝড়ের পরে পটাশপুর ২ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি চন্দন সাউ’এর কাছে ত্রিপল চাওয়া হয়। কিন্তু ত্রিপল চাওয়া হলেও তা এখনও পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। তাছাড়া যাঁদের ক্ষতি হয়নি তাঁদের বাড়িতে গিয়ে ত্রিপল দিয়েছেন তিনি। আমপান বিপর্যয়ের ক্ষতিপূরণের তালিকাতে ক্ষতিগ্রস্তদের নাম নেওয়া হয়েছে। কিন্তু শুধু নামটুকু নিয়েই শেষ। তারপর আর তাঁদের কোনও ক্ষতিপূরণের দেওয়া হয়নি। অথচ এই আমপানের কারনে যাঁদের আসলে কোনও রকমের ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়নি তাঁদেরকে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়েছে। এমনকি জানা গিয়েছে, যাঁদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়েছে তাঁদের মধ্যে অনেকেরই পাকা বাড়িও আছে। তাছাড়া যারা প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত তাঁদের ক্ষতিপুরণ দিতে হবে। যাঁদের কোনও ক্ষতি হয়নি কিন্তু ক্ষতিপূরনের টাকা পেয়েছেন তাঁদের টাকা ফেরত দিতে হবে। না হলে আমরা পরবর্তী দিনে বৃহত্তর আন্দোলনে নামবো।”

এবিষয়ে পটাশপুর ২পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি চন্দন সাউ বলেন,”মানুষের এই অভিযোগকে একেবারে মিথ্যে। তাছাড়া বিজেপি,সিপিএম তাঁদেরকে উস্কে দিচ্ছে। যারা এখনও টাকা পাননি, তাদের কিছু ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট এবং আধার কার্ডের সমস্যা রয়েছে। সে কারণে তাঁদের অ্যাকাউন্টে টাকা ঢোকেনি বাকি সবারই টাকা ঢুকে গিয়েছে।”

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ