মুম্বই: ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও চন্দা কোছারের বিরুদ্ধে অভিযোগের জেরে ব্যবসা ধাক্কা খেয়েছে বলে আইসিআইসি আই ব্যাংকের মার্কিন বাজার নিয়ন্ত্রক সিকিউরিটিস অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (এসইসি)-এ ফাইল করেছেন৷ ভিডিওকন গোষ্ঠীকে ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে স্বার্থগত সংঘাত হয়েছিল বলে অভিযোগ ওঠে চন্দার বিরুদ্ধে৷

এরফলে তদন্তজনিত ঝুঁকি বেড়েছে যার ফলে ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে এবং অতিরিক্ত খরচ বেড়েছে এবং ব্যবসা করতে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে বলে ব্যাংক ওই ফাইলিং এ৷ ভিডিওকন গোষ্ঠী এবং নিউপাওয়ারের সঙ্গে চন্দার স্বামী দীপক কোছারের স্বার্থ কতটা জড়িত তা নিয়েই প্রশ্ন উঠেছিল৷সংবাদ মাধ্যমে খবর এবং এই ব্যাংকের ব্যবসার পদ্ধতি নিয়ে জনগণের চর্চায় এসেছে ৷ যেসব তদন্ত চলছে তা কবে শেষ হবে সে বিষয়ে কোনও নিশ্চয়তা নেই৷ সম্প্রতিএই ব্যাংকটি রয়েছে এসইসি-র নজরে ৷

তবে সিকিউরিটিস অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ বোর্ড অফ ইন্ডিয়া (সেবি) শো-কজ নোটিশ পাঠিয়েছিল মে মাসেই৷ আপাতত ব্যাংকটি অভিযোগের প্রেক্ষিতে তার বক্তব্য জানাচ্ছে তদন্তকারী সংস্থার সামনে৷

প্রসঙ্গত অভিযোগ উঠেছিল ভিডিওকনকে ৩২৫০ কোটি টাকার ঋণ অনুমোদন করে আইসিআইসিআই ব্যাংক যাতে স্বার্থগত সংঘাত রয়েছে৷ ২০১২ সালে ২০টি ব্যাংকের কনসোট্রিয়াম যে ৪০,০০০ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছিল এটা তারই অংশ৷ অভিযোগ ২০১০ সালে বেণুগোপাল ধূত ৬৪ কোটি টাকা দিয়ে পুরোপুরি মালিকানাধীন নিউপাওয়ায় রিনিওবেলস প্রাইভেট লিমিটেড নামে সংস্থা গড়েন দীপক কোছার এবং তাঁর দুই আত্মীয়কে সঙ্গে নিয়ে৷

তাছাড়া ওই ঋণ নেওয়ার ছয় মাসের মধ্যেই ৯ লক্ষ টাকায় বেণু গোপাল ধূত তার মালিকানা হস্তান্তরিত করেন একটি ট্রাস্টের কাছে যার মালিক দীপক কোছার.