কলকাতা: এনপিআর-এর জন্য বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে সব রাজ্য সরকার। এই তালিকায় নেই শুধু বাংলা ও কেরল। এনপিআর নিয়ে শুরু থেকেই আপত্তি জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এনপিআর নিয়ে একই অবস্থান কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়নেরও। রাজ্যের নাগরিকদের স্বার্থেই তাঁদের এই অবস্থান বলে জানিয়েছেন এই দুই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। তবে বাকি রাজ্যগুলি ইতিমধ্যেই কাজ শুরু করে দিয়েছে।

এনপিআর বা জাতীয় পপুলেশন রেজিস্টার নিয়ে ফের বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে দেশের সব রাজ্য। কিন্তু তৃণমূল শাসিত পশ্চিমবঙ্গ ও বাম শাসিত কেরল এখনও পর্যন্ত এব্যাপারে কোনও পদক্ষেপ করেনি। কেন্দ্রীয় সরকার সূত্রে জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যেই প্রিন্সিপাল সেনসাস অফিসারের কাছে প্রত্যেকটি রাজ্য নিজেদের অবস্থানের কথা জানিয়েছে। কিন্তু তার মধ্যে নেই বাংলা ও কেরল। কেন্দ্রীয় জনগণনার নিয়মে স্পষ্ট করে বলা হয়েছে, ভুল তথ্য দিলে রাজ্যগুলিকে জরিমানা করা হবে।

এনপিআরের জন্য ২০১৯ সালের ২৪ ডিসেম্বর কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা ৩৫০০ কোটি টাকার তহবিল মঞ্জুর করে। ইউপিএ আমলে ন্যাশনাল পপুলেশন রেজিস্টারের প্রথম তথ্যটি ২০১০ সালে ইউপিএ সরকার কেন্দ্রে থাকাকালীন সংগ্রহ করা হয়েছিল। সেই সময় দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন পি চিদম্বরম। প্রত্যেক ১০ বছর অন্তর এই তথ্য সংগ্রহ করা হয়। এনপিআর-এর মধ্যে দেশে বসবাসকারী প্রত্যেক বাসিন্দা সম্পর্কে তথ্য থাকে। ন্যাশনাল পপুলেশন রেজিস্টার বা এনপিআর আদতে কিন্তু নাগরিকত্বের রেজিস্ট্রেশন নয়। কারণ এনপিআর-এর মধ্যে ভারতে বসবাসকারী বিদেশীদের সম্পর্কেও তথ্য সংগ্রহ করা হয়ে থাকে। ভারতে যদি কোনও ব্যক্তি ৬ মাস বা তারও বেশি সময় ধরে থাকেন তবে তাঁর নামও ন্যাশনাল পপুলেশন রেজিস্টার বা এনপিআর-এ নথিভুক্ত করা হয়।

নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি নিয়ে শুরু থেকেই কেন্দ্র-বিরোধিতায় সরব বিজেপি-বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়নও একইভাবে কেন্দ্র-বিরোধিতায় সুর চড়িয়েছেন। নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি বাতিলেরও দাবি জানিয়েছেন মমতা-বিজয়ন। একইভাবে এনপিআর নিয়েও তাঁদের আপত্তির কথা তাঁরা জানিয়েছেন। যদিও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এই দুই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে এনপিআর নিয়ে কাজ শুরু করতে আবেদন জানিয়েছেন। এবিষয়ে কোনও সমস্যা থাকলে অমিত শাহ নিজে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও পিনারাই বিজয়নের সঙ্গে আলোচনাতেও প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন অমিত শাহ।