মাদ্রিদ: টানা তিনবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেতাব, একটি লা-লিগা, জোড়া উয়েফা সুপার কাপ, একটি ফিফা ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপ। রিয়াল মাদ্রিদে তাঁর কোচিং’য়ের প্রথম জমানায় জিদানের সাফল্যের ভাঁড়ার ছিল পূর্ণ। তৃতীয়বার রিয়াল মাদ্রিদকে ইউরোপ সেরা করে চাকরি থেকে অব্যাহতি নিয়েছিলেন বিশ্বজয়ী প্রাক্তন ফরাসি ফুটবলার।

কিন্তু গত মরশুমে দলটার খারাপ পারফরম্যান্সের কারণে মরশুমের মাঝপথেই ফের ডাক পড়ে তাঁর। প্রাণের চেয়ে প্রিয় ক্লাবের সেই ডাক উপেক্ষা করতে পারেননি জিদান। কোনওরকমে গত মরশুম শেষ করার পর নতুন মরশুম নিয়ে স্ট্র্যাটেজি তৈরিতে নেমে পড়েন ‘জিজু’। যার ফল চলতি মরশুমে পাচ্ছে লস ব্ল্যাঙ্কোসরা। লকডাউন পরবর্তী টানা ন’ম্যাচে জয়। জিদানের প্রশিক্ষণে আরও একটি খেতাব জয় থেকে একধাপ দূরে দাঁড়িয়ে রিয়াল মাদ্রিদ। লিগের বাকি দু’ম্যাচের একটিতে জয় পেলেই বার্সেলোনার থেকে লা লিগা ট্রফি ছিনিয়ে নেবে তাঁরা।

লকডাউনের আগে বার্সেলোনার তুলনায় দু’পয়েন্ট পিছিয়ে থাকলেও লকডাউন পরবর্তীতে ন’ম্যাচে এখনও কোনও পয়েন্ট নষ্ট করেনি রিয়াল মাদ্রিদ। দ্বিতীয়বার হেড কোচ হিসেবে লা লিগা জয়ের কিনারে দাঁড়িয়ে জিদান বলছেন, আমার ফুটবলাররা সেরা। ওরা প্রত্যেকেই ব্যালন ডি-অর জয়ের দাবিদার। ভিল্লারিয়ালের বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে নামার আগে ক্লাবের ওয়েবসাইটে জিদান জানিয়েছেন, ‘আমার মনে হয় আমার ফুটবলাররাই সেরা। বহু বছর ধরে করিম নিঃশব্দে দুরন্ত পারফর্ম করে যাচ্ছে। কিন্তু প্রত্যেকবারের মতোই একজনই ব্যালন ডি-অর নিয়ে যাবে আর বাকিরা কেবল মতামত পোষণ করবে।’

এরপরেই জিদান জানান, আমার দলের সকল ফুটবলারই ব্যালন ডি-অর পাওয়ার যোগ্য। একইসঙ্গে পরবর্তী ম্যাচের প্রতিপক্ষ ভিল্লারিয়ালকে তাঁদের সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে কঠিন প্রতিপক্ষ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন তিনি। জিদান জানিয়েছেন, ‘আগামীকাল (শুক্রবার) আমাদের সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে কঠিন ম্যাচ। যারা ইদানিং খুব ভালো ফুটবলের নমুনা রেখেছে, স্বাভাবিকভাবেই ওরা ভীষণ কঠিন প্রতিপক্ষ হিসেবে প্রতিপন্ন হবে।’

৩৬ ম্যাচে ৮৩ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে থাকা রিয়াল ভিল্লারিয়ালের বিরুদ্ধে জিতলেই ৩৪ বারের জন্য খেতাব জিতবে। ঘরের মাঠে শুক্রবারই সেটা নিশ্চিত হয় নাকি অপেক্ষা শেষ ম্যাচ অবধি দীর্ঘায়িত হয়, এখন সেটাই দেখার।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ