শ্রীনগর: কাশ্মীর পুনর্গঠন বিল পাশ হওয়ার পর থেকেই কাশ্মীর নিয়ে গর্জন শুরু করেছে পাকিস্তান। ভারতের স্বাধীনতা দিবসে কালা দিবস পালন করেছে তারা। কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে চিঠি পাঠিয়েছে রাষ্ট্রসংঘে। এই পরিস্থিতিতে আশঙ্কা করা হচ্ছে, কাশ্মীর অশান্ত করতে জঙ্গি পাঠাতে পারে পাকিস্তান। সীমান্ত পার করে জঙ্গি অনুপ্রবেশের আশঙ্কায় জারি হল হাই অ্যালার্ট।

শুক্রবারই কাশ্মীরে আর্মি, এয়ার ফোর্স ও সব নিরাপত্তা বাহিনীকে সতর্ক করা হয়েছে। এদিকে, সোমবার থেকেই স্বাভাবিক হতে চলেছে কাশ্মীরের জনজীবন। তুলে নেওবা হবে কার্ফু।

এদিন সকালে এক পাকিস্তানি জওয়ানকে খতম করে ভারতীয় সেনা৷ এই নিয়ে মোট চার জন পাক জওয়ানকে নিকেশ করা গিয়েছে বলে সেনা সূত্রে খবর৷ পাক সেনার মৃত্যুর খবর স্বীকার করে নিয়েছে পাক প্রশাসন৷

বৃহস্পতিবার স্বাধীনতা দিবসের সন্ধ্যায় সীমান্ত সংলগ্ন একাধিক ঘাঁটিতে শেলিং শুরু করে পাকিস্তান সেনা। খোলা হাতে পাকিস্তানকে কড়া ভাষায় জবাব দেয় ভারতীয় সেনা। সীমান্ত সংলগ্ন একাধিক পাক ঘাঁটি লক্ষ্য করে ভারতীয় সেনা প্রত্যাঘাত করে ভারী অস্ত্রে সাহায্যে চলে শেলিং।

জানা যায়, ভারতীয় সেনার প্রত্যাঘাতে গুঁড়িয়ে গিয়েছে একাধিক পাক সেনা ঘাঁটি। তিন পাকিস্তান সেনাও এই প্রত্যাঘাতে খতম হয়েছে বলে ভারতীয় সেনার তরফে জানা গিয়েছে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে সীমান্ত। উরি-রাজৌরি এবং কেজি সেক্টরে চলছে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে ব্যাপক শেলিং।

পাক সেনা মুখপাত্র মেজর জেনারেল আসিফ গফুর ভারতীয় সেনাকে দোষারোপ করে বলেছেন ভারতীয় সেনাই প্রথম অশান্তি শুরু করে৷ পাক সেনার দাবি ভারতীয় সেনা পাঁচজন পাক জওয়ানকে মেরেছে৷ পাক বাঙ্কারও ধংস্ব করা হয়েছে৷ তবে ভারতের পক্ষ থেকে এই দাবি উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে৷