প্রতীতি ঘোষ, বারাকপুর: শুক্রবার নৈহাটির দেবক গ্রামে ঘটা অবৈধ বাজি কারখানা বিস্ফোরণের ঘটনার তদন্তে নেমে শনিবার দুপুরে উত্তর ২৪ পরগনার মামুদপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত দেবক গ্রাম ঘুরে দেখলেন বারাকপুরের পুলিশ কমিশনার মনোজ ভার্মা। এদিন পুলিশ কমিশনার মনোজ ভার্মার নেতৃত্বে, গোয়েন্দা বিভাগের একটি দল দেবক গ্রামে ওই বিস্ফোরনস্থল ঘুরে দেখেন ও নানান নমুনা সংগ্রহ করেন।

এদিন বিস্ফোরণ স্থল ঘুরে দেখার পাশাপাশি মনোজ ভার্মা মামুদপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের পঞ্চায়েত প্রধান সহ অন্যান্যদের সঙ্গে দেখা করেন এবং পঞ্চায়েত দফতরে দেবক গ্রামে গজিয়ে ওঠা বেআইনী বাজি কারখানা গুলি সম্পর্কে বৈঠক করেন।

পুলিশের তরফ থেকে দেবক গ্রামে গজিয়ে ওঠা এই অবৈধ বাজি কারখানা গুলি বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই দেবক গ্রামে ১০০ টির ও বেশি অবৈধ বাজি কারখানা রয়েছে। আর এই সমস্ত অবৈধ বাজি কারখানা গুলিতে কর্মসংস্থান হয়েছে অনেক স্থানীয় বাসিন্দাদেরও। তাই পুলিশের এই বাজি কারখানা গুলি বন্ধ করবার নির্দেশের খবর পেয়ে ওই সমস্ত কারখানার সঙ্গে যুক্ত গ্রাম বাসীরা পুলিশ কমিশনার মনোজ ভার্মা ওতদন্দে আসা আন্যান পুলিশ আধিকারিদের সাথে কথা বলেন।

এদিন পুলিশ কমিশনার মনোজ ভার্মা জনান, ”গতকালের ঘটনায় ইতিমধ্যেই যে মূল অভিযুক্ত তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আজ আমরা ঐ বিস্ফোরণ স্থল খতিয়ে দেখলাম। আমরা চাইছি এই গ্রামের সমস্ত অবৈধ বাজি কারখানা গুলি তুলে দিয়ে ওই কাজের সঙ্গে যুক্ত মানুষদের অন্য কোনও বিকল্প কর্মসংস্থান করে দিতে। যাতে, এই ধরনের অবৈধ বাজি কারখানা আর গড়ে না ওঠে।”

এদিকে এই বিস্ফোরণের ঘটনার পর পুলিশের সঙ্গে মামুদপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের পঞ্চায়েত প্রধান ও পঞ্চায়েতের অন্যান্যদের সঙ্গে বৈঠকের পর মামুদপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপ প্রধান হারান চন্দ্র ঘোষ বলেন দেবক গ্রামে যে অবৈধ বাজি কারখানা চলছিল সেই সক্রান্ত কোনও খবর আমাদের পঞ্চায়েতের কাছে ছিল না। আমরা জানলে এই কারখানা আগেই বন্ধ করে দিতাম।

তবে আমাদের সঙ্গে প্রশাসনের বৈঠক হয়েছে। পুলিশের মত আমরাও চাইছি গ্রামে এই ধরনের অবৈধ বাজি কারখানা গুলি সম্পূর্ণ ভাবে বন্ধ করে দিতে সেই সঙ্গে এই অবৈধ বাজি তৈরির সঙ্গে যুক্ত মানুষদের অন্য কোনও বিকল্প কর্মসংস্থান করার বিষয়েও আমাদের চিন্তা ভাবনা আছে। তবে গত কালকের বিস্ফোরণের ঘটনায় এনআইএ বা সিবিআই তদন্তের প্রয়োজন নেই। এই বিস্ফোরণে যে কয়জন মারা গিয়েছেন তাঁদের পরিবারকে আর্থিক ক্ষতিপূরণ দিয়ে তাঁদের পাশে থাকার চেষ্টা আমাদের পঞ্চায়েতের তরফ থেকে করা হবে।

শুক্রবারের অবৈধ বাজি কারখানা বিস্ফোরণের ঘটনায় পুলিশ প্রশাসনের মত মামুদপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্যান্য বাসিন্দারাও চাইছেন, দেবক গ্রামের সমস্ত অবৈধ বাজি কারখানা গুলি সম্পূর্ণ ভাবে বন্ধ করে দেওয়া হোক। এই অবৈধ বাজি কারখানা গুলি বন্ধের দাবিতে শনিবার স্থানীয় বাসিন্দারা নৈহাটি দেবক রোড অবরোধ করেন।

দাবি, কিছুদিন পর পর এই ধরনের বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটতেই থাকে। এই সমস্ত অবৈধ বাজি কারখানা গুলিতে। ফলে এই ঘটনায় প্রাণ যাচ্ছে বহু মানুষের। এবার এই অবৈধ বাজি কারখানা গুলি বন্ধ করে অন্য কিছু বিকল্প কর্ম সংস্থান করার ব্যবস্থা করুক প্রশাসন। শনিবার প্রায় ঘণ্টা খানেক চলে এই অবরোধ। অবশেষে নৈহাটি থানার পুলিশ এসে সমস্ত অবৈধ বাজি কারখানা গুলি বন্ধ করে বিকল্প কর্ম সংস্থান করে দেওয়ার আশ্বাস দিলে অবরোধ উঠে যায়

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

Tree-bute: রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও