আলিপুরদুয়ার: ফালাকাটা থানার ভিতর ঢুকে যুবককে মারধরের অভিযোগ আলিপুরদুয়ারের জেলাশাসক নিখিল নির্মলের বিরুদ্ধে৷ ভিডিও ভাইরাল হতেই পদক্ষেপ করল নবান্ন৷ ছুটিতে পাঠানো হল অভিযুক্ত জেলাশাসক নিখিল নির্মলকে৷ বর্তমানে জেলার দায়িত্বে থাকবেন অতিরিক্ত জেলাশাসক৷

আরও পড়ুন: ‘অশ্লীল গানে, খোলামেলা পোশাকে নাচতে বাধ্য করা হত হোমের কিশোরীদের’

সূত্রে খবর, আলিপুরদুয়ারের জেলাশাসক আইন নিজের হাতে তুলে নিয়েছিলেন৷ বিষয়টিকে হাল্কাভাবে নেয়নি প্রশাসন৷ অসন্তুষ্ট নবান্ন৷ তাই তড়িঘড়ি পদক্ষেপ রাজ্য প্রশাসশনের৷ ছুটিতে পাঠান হল জেলাশাসক নিখিল নির্মলকে৷

আলিপুরদুয়ারের জেলাশাসকের স্ত্রী নন্দিনী কৃষ্ণানকে সোশ্যাল মিডিয়ায় এক যুবক আপত্তিকর মন্তব্য করেছিল বলে অভিযোগ। অভিযুক্ত যুবককে ডেকে পাঠানো হয় থানায়৷ সেখানেই তাকে মারধর করেন আলিপুরদুয়ারের জেলাশাসক নিখিল নির্মল৷ মারধরে যুক্ত ছিলেন তাঁর স্ত্রীও৷ এমনকি অভিযুক্তকে মেরে ফেলার হুমকি দেন জেলাশাসক৷ এরপর পুলিশ গ্রেফতার করে অভিযুক্ত যুবক বিনোদকে। মারধরের সময়কার ছবি ভাইরাল হয়ে যায়৷ শুরু হয় বিতর্ক৷ কেন অভিযুক্তকে মারধর করে জেলাশাসক আইন নিজের হাতে নিলেন প্রশ্ন তোলেন অনেকেই৷

যদিও বিতর্কের পরও অভিযুক্ত জেলাশাসকের পাশেই দাঁড়িয়েছেন তাঁর স্ত্রী নন্দিনী৷ সোশ্যাল মিডিয়ার পোস্ট করে তিনি জানান, স্বামীর (নিখিল নির্মল) এই কাজের জন্য তিনি গর্বিত। স্বামীর কাজে তিনি গর্বিত৷

আরও পড়ুন: দেশ জুড়ে যা চলছে, তা বন্ধ হওয়া উচিৎ: অমর্ত্য সেন

তবে নির্মল দম্পতির এই কাজ মানতে পারেনি প্রশাসন৷ আইন নিজের হাতে তুলে নেওয়ার অপরাধেই আপাতত আলিপুরদুয়ারের জেলাশাসককে পাঠানো হল ছুটিতে৷ মনে করা হচ্ছে পদে থেকে সরকারী আধিকারীকদের অপব্যবহার বরদাস্ত করা হবে না বলে বার্তা দেওয়া হল নবান্নের তরফে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.