আলিপুরদুয়ার: ফালাকাটা থানার ভিতর ঢুকে যুবককে মারধরের অভিযোগ আলিপুরদুয়ারের জেলাশাসক নিখিল নির্মলের বিরুদ্ধে৷ ভিডিও ভাইরাল হতেই পদক্ষেপ করল নবান্ন৷ ছুটিতে পাঠানো হল অভিযুক্ত জেলাশাসক নিখিল নির্মলকে৷ বর্তমানে জেলার দায়িত্বে থাকবেন অতিরিক্ত জেলাশাসক৷

আরও পড়ুন: ‘অশ্লীল গানে, খোলামেলা পোশাকে নাচতে বাধ্য করা হত হোমের কিশোরীদের’

সূত্রে খবর, আলিপুরদুয়ারের জেলাশাসক আইন নিজের হাতে তুলে নিয়েছিলেন৷ বিষয়টিকে হাল্কাভাবে নেয়নি প্রশাসন৷ অসন্তুষ্ট নবান্ন৷ তাই তড়িঘড়ি পদক্ষেপ রাজ্য প্রশাসশনের৷ ছুটিতে পাঠান হল জেলাশাসক নিখিল নির্মলকে৷

আলিপুরদুয়ারের জেলাশাসকের স্ত্রী নন্দিনী কৃষ্ণানকে সোশ্যাল মিডিয়ায় এক যুবক আপত্তিকর মন্তব্য করেছিল বলে অভিযোগ। অভিযুক্ত যুবককে ডেকে পাঠানো হয় থানায়৷ সেখানেই তাকে মারধর করেন আলিপুরদুয়ারের জেলাশাসক নিখিল নির্মল৷ মারধরে যুক্ত ছিলেন তাঁর স্ত্রীও৷ এমনকি অভিযুক্তকে মেরে ফেলার হুমকি দেন জেলাশাসক৷ এরপর পুলিশ গ্রেফতার করে অভিযুক্ত যুবক বিনোদকে। মারধরের সময়কার ছবি ভাইরাল হয়ে যায়৷ শুরু হয় বিতর্ক৷ কেন অভিযুক্তকে মারধর করে জেলাশাসক আইন নিজের হাতে নিলেন প্রশ্ন তোলেন অনেকেই৷

যদিও বিতর্কের পরও অভিযুক্ত জেলাশাসকের পাশেই দাঁড়িয়েছেন তাঁর স্ত্রী নন্দিনী৷ সোশ্যাল মিডিয়ার পোস্ট করে তিনি জানান, স্বামীর (নিখিল নির্মল) এই কাজের জন্য তিনি গর্বিত। স্বামীর কাজে তিনি গর্বিত৷

আরও পড়ুন: দেশ জুড়ে যা চলছে, তা বন্ধ হওয়া উচিৎ: অমর্ত্য সেন

তবে নির্মল দম্পতির এই কাজ মানতে পারেনি প্রশাসন৷ আইন নিজের হাতে তুলে নেওয়ার অপরাধেই আপাতত আলিপুরদুয়ারের জেলাশাসককে পাঠানো হল ছুটিতে৷ মনে করা হচ্ছে পদে থেকে সরকারী আধিকারীকদের অপব্যবহার বরদাস্ত করা হবে না বলে বার্তা দেওয়া হল নবান্নের তরফে৷