সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা : শীতে দর্শকদের জন্য আরও নতুন রূপে সেজে আসছে আলিপুর চিড়িয়াখানা। এবার প্রতিবন্ধীদের জন্যেও সুযোগ সুবিধা দিচ্ছে চিড়িয়াখানা। নতুন আরও ৬ টি হুইল চেয়ার আনা হবে চিড়িয়াখানায়। শারীরিক ভাবে অক্ষম শিশু ভালোভাবে চিড়িয়াখানা দর্শন করবার সুযোগ করে দেওয়ার উদ্দেশ্যেই এই উদ্যোগ মহানগরের চিড়িয়াখানার।

নতুন ১৫ টি পশু এনে ইতিমধ্যেই বাজার গরম আলিপুর চিড়িয়াখানার। শীতের আমেজ আসতেই ইতিমধ্যেই ভিড় জমতে শুরু করেছে চিড়িয়াখানায়। নয়া উদ্যোগ প্রতিবন্ধীদের জন্য সুযোগ সুবিধা বাড়ানো। চিড়িয়াখানায় শীতকালে সব থেকে বেশী ভিড় হয়। ওই সময়ে বহু মানুষের সমাগম হয় শহরের একমাত্র চিড়িয়াখানায়। অনেক সময় বিভিন্নস স্কুল থেকে ছাত্রছাত্রীদের পশুশালায় নিয়ে আসে। সারাদিন তারা কাটায় চিড়িয়াখানায়। অনেকক্ষেত্রে শহরের বেশ কিছু স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার উদ্যোগেও অনেক পথশিশুকেও আনা হয় চিড়িয়াখানায়। এদের মধ্যে কিছু প্রতিবদ্ধিও থাকে যারা পশুশালায় আসে। এদের জন্যই নয়া উদ্যোগ নিচ্ছে কলকাতার চিড়িয়াখানা। বাড়ানো হচ্ছে হুইল চিয়ারের সংখ্যা। যাতে বসে পুরো চিড়িয়াখানা ঘুরে দেখতে পারবে তারা।

অক্টোবরেই চিড়িয়াখানায় এসেছে দু’টি সিংহ, দু’টি জাগুয়ার এবং ছ’টি মাউস ডিয়ার। পূর্ণবয়স্ক‘এশিয়াটিক’ সিংহ এনেছে চিড়িয়াখানা। চিড়িয়াখানায় সিংহের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে তিন।আনা হয়েছে দু’টি পুরুষ এবং দু’টি স্ত্রী ক্যাঙারু। এদের উপহার হিসাবে দিয়েছে জাপানের কানাজুয়া চিড়িয়াখানা। ক্যাঙারুগুলি ইস্টার্ন গ্রে প্রজাতির। চিড়িয়াখানা জানিয়েছিল, দীর্ঘসময় ধরেই ক্যাঙারু আনার ব্যাপারে তৎপরতা চলছিল। জাপান থেকে ব্যাঙ্কক হয়ে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছয় ক্যাঙারুগুলি। সেখান থেকে শীতাতপনিয়ন্ত্রিত গাড়িতে সেগুলিকে চিড়িয়াখানায় আনা হয় চিড়িয়াখানায়। এখনও তাঁদের দারুণ পরিচর্যা চলছে।

২০১৫ সালের পর থেকে আলিপুর চিড়িয়াখানায় আর ক্যাঙারু নেই। আড়াই বছর পর আবার ক্যাঙারু এসেছে। ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকে দর্শকেরা ক্যাঙারুগুলি দেখাও যাবে। মূলত পূর্বে চিড়িয়াখানায় যে সব পশু মারা গিয়েছে, সেই সব পশুকেই আনার চেষ্টা করেছে কর্তৃপক্ষ। হায়দরাবাদ চিড়িয়াখানা থেকে জাগুয়ার, সিংহ এবং মাউস ডিয়ার আনা হয়েছে। তার পরিবর্তে আলিপুর চিড়িয়াখানা তাদের একটি পুরুষ এবং একটি স্ত্রী জিরাফ দিয়েছে। এই সমস্ত মিলিয়ে এমনিতেই শীতে জমজমাট আলিপুরের চিড়িয়াখানা। নিঃসন্দেহে এই শীতে ভিড় বাড়বে চিড়িয়াখানায়। এই দর্শনার্থীদের মধ্যে থাকতে পারে শারীরিক প্রতিবন্ধি মানুষ। তাঁদের জন্যই বিশেষ ব্যবস্থা করছে আলিপুর চিড়িয়াখানা।

চিড়িয়াখানার প্রধান আশিস সামন্ত জানিয়েছেন, “এই বছর ভিড় বেশী হবে বলেই আশা রাখছি। সেই উদ্দেশ্যই প্রতিবন্ধীদের ভালোভাবে চিড়িয়াখানা ঘুরে দেখার সুযোগ করে দিচ্ছি।” তিনি এও জানিয়েছেন এমনিতে , “আমাদের ১৯টি হুইল চেয়ার রয়েছে চিড়িয়াখানায়। শীতকালে এগুলি প্রচুর কাজ দেয়। কিন্তু এবারের জন্য আমরা বিশেষ উদ্যোগ নেবার চিন্তা ভাবনা করছি। চেষ্টা করছি আরও ছয় থেকে সাতটি হুইল চেয়ার বাড়ানোর।” ডিসেম্বরে নতুন পশুদের দেখা যাবে। তার আগেই এই ব্যবস্থা ফলপ্রসূ করার চেষ্টা করছে আলিপুর চিড়িয়াখানা।