অনেকেই বলেন মদ্যপানের বিরুদ্ধে যারা তাদের মাথায় পরুক বাজ৷ তারা বেশ ভালোই জানান মদ্যপান শরীরের পক্ষে ক্ষতিকর৷ তবে জানেন কি অতিরিক্ত মদ্যপান ত্বকের ক্যানসারেরও কারণ? এবার মনে হতেই পারে মদ খেলে তো লিভারে ক্যানসার হওয়ার কথা হঠাৎ ত্বকে কেন? সাম্প্রতিক গবেষণাতে উঠে এসেছে এমনই তথ্য৷

গবেষকেরা জানিয়েছেন অতিরিক্ত মদ্যপান শরীরে অর্ধেকেরও বেশি ত্বকের ক্যানসারের প্রাণঘাতী উপাদান উৎপাদন করে৷ তাঁরা জানিয়েছেন প্রতিদিন ৩ থেকে ৪ পেগ মদ খেলে শরীরে কিছু জৈবিক পরিবর্তন হয় এর ফলে সুর্যরশ্মিতে শরীর অনেক বেশি সংবেদনশীল হয়ে পড়ে৷  শুধু তাই নয় দিনে এক পেগ করে মদ খেলেও কিন্তু মিলানোমা হওয়ার সম্ভাবনা ২০ শতাংশ বৃদ্ধি পায়৷

গবেষক ডাঃ ইভা নেগরি জানিয়েছেন, অতি বেগুনী রশ্মি ও অ্যালকোহল শরীরের রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতাকে কমিয়ে দেয়৷এতে অতিরিক্ত মাত্রায় ত্বকের কোষ ক্ষতিগ্রস্থ হয় এবং ত্বকে ক্যানসার হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়৷ তবে গবেষকেরা স্বীকার করেছেন যে, আ্যালকোহল কিভাবে ত্বকে ক্যানসার সৃষ্টি করে তা তারা এখনও জানতে পারেননি৷ কিন্তু তারা প্রমাণ করেছেন যে অ্যালকোহল শরীরে প্রবেশ করে দ্রুত অ্যাকটালডেহাইডি তে পরিণত হয়ে ত্বককে সূর্যরশ্মির সামনে অনেক বেশি সংবেদনশীল করে দেয়৷ এই গবেষণাটি সম্প্রতি ব্রিটিশ জার্নাল অফ ডার্মাটোলজিতে প্রকাশিত হয়েছে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।