মুম্বই- করোনা মোকাবিলায় সামনের সারিতে দাঁড়িয়ে লড়ছেন চিকিৎসক, নার্স ও পুলিশ। গোটা দেশের মানুষ যাতে সুরক্ষিত থাকে তাই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রোজ বাড়ি থেকে বেরোচ্ছেন তাঁরা। অভিনেতা অক্ষয় কুমার আগেও এই যোদ্ধাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। সম্প্রতি পুলিশকর্মীদের সুবিধার্থে এক অভিনব উদ্যোগ নিলেন অক্ষয়। মুম্বই পুলিশকে বিশেষ প্রযুক্তিসম্পন্ন এক ধরনের রিস্টব্যান্ড দিয়ে সাহায্য করলেন অক্ষয়।

এই রিস্টব্যান্ডের বিশেষত্ব হলো করোনার উপসর্গযুক্ত মানুষ আশপাশে থাকলে এই রিস্টব্যান্ডে তা ধরা পড়বে। এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, এই রিস্টব্যান্ডগুলি জিওকিউআইআই ব্র্যান্ডের।

এই ব্র্যান্ডেরই অ্যাম্বাসাডর হলেন অক্ষয়। করোনার উপসর্গ ধরার জন্য সংস্থ এক নতুন ধরনের রিস্টব্যান্ড তৈরি করেছে। এর মধ্যে এমন এক সেন্সর রয়েছে যা করোনার উপসর্গ ধরতে পারে। ফলে পুলিশকর্মীদের হাতে এই ভাইটাল ৩.০ রিস্টব্যান্ড থাকলে তাঁরা সহজেই সাবধান হতে পারবেন এবং বুঝতে পারবেন কোনও ব্যক্তির মধ্যে করোনার উপসর্গ রয়েছে কিনা। থার্মাল চেকিং-এ শরীরের তাপমাত্রা মেপে সাবধানতা অবলম্বন করা হচ্ছিল।

সেরকমই এই রিস্ট ব্যান্ডও শরীরে তাপমাত্রা মাপতে পারবে। বিশ্বে প্রথম মুম্বই পুলিশই এই বিশেষ রিস্টব্যান্ডের সুবিধা পাচ্ছে। তাঁরা রাস্তায় দিনরাত এক করে কাজ করে যাচ্ছেন। নানা মানুষের সংস্পর্শে আসছেন। তাই তাঁদের ঝুঁকি যথেষ্ট বেশি। এই রিস্টব্যান্ডের ফলে যে তাঁদের কাজ করতে কিছুটা সুবিধা হবে তা বলাই যায়।

জিওকিউআইআই এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ইংল্যান্ড, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, জাপান, সহ বেশ কিছু দেশে এই রিস্ট ব্যান্ড লঞ্চ করার কথা ভাবা হচ্ছে। ভারতেও এর ম্যানুফ্যাচারিংয়ের পরিকল্পনা রয়েছে। তবে, এই রিস্টব্যান্ড কেবলমাত্র স্ক্রিনিং করবে। অর্থাৎ উপসর্গ আছে কি না তা বলতে পারবে মাত্র এবং সাবধান করবে।

প্রসঙ্গত, করোনা মোকাবিলায় প্রথম থেকেই সহযোগিতা করছেন অক্ষয়। কিছুদিন আগেই ম্বই পুলিশের ফাউন্ডেশনে অক্ষয় ২ কোটি টাকা অনুদান দিয়েছেন তিনি। অক্ষয়ের কথায়, মুম্বই পুলিশের আধিকারিক চন্দ্রকান্ত পেন্ডুরকার ও সন্দীপ সুরভে করোনার লডা়ইয়ে প্রাণ হারিয়েছেন। তাঁদের স্যালুট। আমি আমার কর্তব্য পালন করেছি। আপনারও করবেন আশা করি। ভুলে গেলে চলবে না ওঁদের জন্যই আমরা সুরক্ষিত ও জীবিত আছি।

স্বামীর সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে বস্ত্র ব্যবসাকে অন্যমাত্রা দিয়েছেন।'প্রশ্ন অনেকে'-এ মুখোমুখি দশভূজা স্বর্ণালী কাঞ্জিলাল I