মুম্বই: লড়াইতে একতরফা এগিয়ে ছিলেন লক্ষ্মণ শিবরামকৃষ্ণন। শেষ মুহূর্তে রিংয়ে টুপি ছুঁড়ে দিয়ে লড়াই জমিয়ে দিলেন জিত আগরকর। ভারতের জাতীয় ক্রিকেট দলের নির্বাচক হওয়ার জন্য আবেদন জানালেন টিম ইন্ডিয়ার প্রাক্তন পেসার।

আগরকরের মতো হেভিওয়েট প্রার্থী লড়াইয়ে নামায় নির্বাচক কমিটির চেয়ারম্যান হওয়ার দুই দাবিদার এখন বিসিসিআই-এর সামনে। ক্রিকেট অ্যাডভাইজরি কমিটির নতুন সদস্য যাঁরাই হোন না কেন, শিবরামকৃষ্ণন ও আগরকরের মধ্য থেকে একজনকে নির্বাচিক প্রধান বেছে নেওয়ার কাজটা সহজ হবে না তাঁদের পক্ষে।

বিসিসিআই ২৪ জানুয়ারির মধ্যে নির্বাচক হতে আগ্রহী প্রাক্তন ক্রিকেটারদের আবেদনপত্র জমা দিতে বলেছিল। সেই মতো আগরকর সময়সীমা শেষ হওয়ার আগেই আবেদনপত্র জমা দেন বোর্ডে। তিনি নিজেই জানান লড়াইয়ে নামার কথা। বোর্ডের নতুন সংবিধান অনুযায়ী আঞ্চলিক নির্বাচক প্রথা উঠে যাওয়ায় আগারকরের জাতীয় নির্বাচক হওয়া কার্যত নিশ্চিত। এর আগে মুম্বইয়ের সিনিয়র ক্রিকেট দলের নির্বাচক প্রধানের ভূমিকা পালন করেছেন অজিত।

ক্রিকেটার হিসেবে আগরকরের রেকর্ডই তাঁকে হেভিওয়েট করে তুলেছে জাতীয় নির্বাচকের পদ। ৪২ বছর বয়সি আগরকর দেশের হয়ে ২৬টি টেস্ট, ১৯১টি ওয়ান ডে ও ৩টি আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচ খেলেছেন। তিন ফর্ম্যাট মিলিয়ে ৩৪৯টি আন্তর্জাতিক উইকেট রয়েছে তাঁর ঝুলিতে। অনিল কুম্বলে (৩৩৪) ও জাভাগল শ্রীনাথের (৩১৫) পর আগরকরই ভারতের তৃতীয় সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ২৮৮টি উইকেট রয়েছে আগরকরের। ৫০টি উইকেট নেওয়া দ্রুততম বোলারের রেকর্ড এখনও তাঁর দখলে রয়েছে। মাত্র ২৩টি ওয়ান ডে ম্যাচে তিনি ৫০টি উইকেট নিয়েছিলেন।

আগরকর ও শিবরামকৃষ্ণন ছাড়া ভারতের নির্বাচন হওয়ার জন্য আবেদন জানিয়েছেন চেতন শর্মা, নয়ন মোঙ্গিয়া, রাজেশ চৌহান, আমে খুরেশিয়া, জ্ঞানেন্দ্র পান্ডে ও প্রীতম গান্ধে।