নেটলওর্থ: ট্রিপিক্যাল ব্রিটিশ ফার্স্ট ক্লাস পিচ৷ বাইশগজের দোসর আবহাওয়াও৷ মাথার উপর জমাট মেঘের আস্তরণে ঘাসে ঢাকা পিচে পেসারদের যে রকম ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠা উচিত, ঠিক তেমনটাই আগুনে পেস বোলিং চোখে পড়ে নটিংহ্যামশায়ারের ঘরের মাঠে৷ এমন চ্যালেঞ্জিং পরিবেশে ব্যাট হাতে সংক্ষিপ্ত অথচ কার্যকরী ইনিংস খেলে দলকে প্রাথমিক বিপর্যয় কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করেন অজিঙ্কা রাহানে৷

প্রথম ম্যাচেই শতরান করে কাউন্টি অভিষেক স্মরণীয় করে রেখেছেন টেস্টে টিম ইন্ডিয়ার ভাইস ক্যাপ্টেন৷ নিউপোর্টে নটিংহ্যামের বিরুদ্ধে নিজের প্রথম কাউন্টি ম্যাচের দ্বিতীয় ইনিংসে ১১৯ রান করেন রাহানে৷ মাঝে লিডসে ইয়র্কশায়ারের বিরুদ্ধে প্রথম দফায় ৩১ রানের সংক্ষিপ্ত ইনিংস খেলেছিলেন৷ এবার সেই নটিংহ্যামশাহারের বিরুদ্ধেই নেটলওর্থের প্রথম ইনিংসে ৩৪ রান করে আউট হন অজিঙ্কা৷

সংখ্যার নিরিখে ফার্স্ট ক্লাস ম্যাচে ৩৪ রানের ইনিংস উল্লেখযোগ্য নাও মনে হতে পারে৷ তবে পরিবেশ-পরিস্থিতির বিচারে রাহানের ব্যাটিং নির্ভরতা দেয় হ্যাম্পশায়ারকে৷ কেননা, শুরুতেই তারা ওপেনার সোয়ামেসের উইকেট হারিয়ে বসেছিল৷ নতুন বলের নড়াচড়া সামলে প্রাথমিক বিপর্যয় রোধ না করলে হ্যাম্পশায়ারের অবস্থাও প্রতিপক্ষ নটিংহ্যামশায়ারের মতো হতে পারত৷ বিশেষ করে ওয়েদারলির সঙ্গে দ্বিতীয় উইকেটের জুটিতে রাহানের ৮০ রানের পার্টনারশিপ নিঃসন্দেহে প্রশংসার যোগ্য৷

ব্রিটিশ কাউন্টিতে টসের কোনও প্রসঙ্গ না থাকায় হ্যাম্পশায়ার প্রথমে বোলিংয়ের বিকল্পই বেছে নেয় পিচ ও পরিবেশের কথা মাথায় রেখে৷ ৬০.২ ওভারে তারা নটিংহ্যামের প্রথম ইনিংস গুটিয়ে দেয়৷ ক্যাপ্টেন স্টিভ মুলানি দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৫ রান করেন৷ বেন ডাকেট ও সমিত প্যাটেলের অবদান যথাক্রমে ২২ ও ২৪ রানের৷ জেমস প্যাটিনসন ২২ রানের কার্যকরী ইনিংস খেলেন৷

হ্যাম্পশায়ারের হয়ে ৩৭ রানের বিনিময়ে ৬ উইকেট নেন কাইল অ্যাবট৷ প্রোটিয়া পেসারকে যথাযোগ্য সঙ্গত করেন বার্কার ও ফুলার৷ দু’জনেই নেন ২টি করে উইকেট৷

জবাবে ব্যাট করতে নেমে হ্যাম্পশায়ার প্রথম দিনের শেষ তাদের প্রথম ইনিংসে ২ উইকেট হারিয়ে ৯৩ রান তুলেছে৷ ওয়েদারলি নটআউট রয়েছেন ব্যক্তিগত ৪৭ রানে৷ ম্যাচের গতিপ্রকৃতি অনুমান করলে রাহানের সামনে দ্বিতীয় ইনিংসেও ব্যাট করার সুযোগ আসতে পারে৷ সুযোগ কতটা কাজে লাগাতে পারেন টিম ইন্ডিয়ার টেস্ট তারকা, সেটাই হবে দেখার বিষয়৷ আপাতত কাউন্টির পাঁচটি ইনিংসে অজিঙ্কা রাহানের ব্যক্তিগত সংগ্রহ যথাক্রমে ১০, ১১৯, ৩১, ০ ও ৩৪ রান৷