হায়দরাবাদ: ‘বিপক্ষ দলে ডেভিড ওয়ার্নারের মত একজন ফর্মে থাকা ব্যাটসম্যান থাকলে কোনও রানই নিরাপদ নয়।’ শুক্রবার ম্যাচ হারের পর সাফ জানিয়ে দিলেন রাজস্থান দলনেতা আজিঙ্কা রাহানে। কেরিয়ারের দ্বিতীয় এবং চলতি আইপিএলের প্রথম সেঞ্চুরি করে এদিন রাজস্থানকে পাহাড়প্রমাণ ১৯৮ রানে পৌঁছে দেন সঞ্জু স্যামসন। ৭০ রানের অধিনায়কোচিত ইনিংসে তাঁকে যোগ্য সহায়তা করেন রাহানে নিজে।

কিন্তু রাজস্থানের ছুঁড়ে দেওয়া সেই লক্ষ্যমাত্রা এদিন এক ওভার বাকি থাকতে সহজেই তুলে দেয় হায়দরাবাদ। আর তাতে ব্যাট হাতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন অজি বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান ডেভিড ওয়ার্নার। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সদ্য নির্বাসনমুক্ত হয়েছেন। বিশ্বকাপের জন্য নিজেকে ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট লিগে ঝালিয়ে নিচ্ছেন ওয়ার্নার। প্রথম ম্যাচে নাইটদের বিরুদ্ধে ৫৩ বলে মারকাটারি ৮৫ রান কাজে না এলেও দ্বিতীয় ম্যাচে ওয়ার্নারের ৩৭ বলে বিধ্বংসী ৬৯ রানে ধামাচাপা পড়ে গেল স্যামসনের ইনিংস।

আরও পড়ুন: ছক্কা কান্ডে মন্তব্যের পালটা দিয়ে চাহালকে কটাক্ষ ব্রডের

রাহানের মতে, ‘পিচে বল একটু থমকে আসছিল। তাই ১৯০’র বেশি রান ডিফেন্ড করার জন্য উপযুক্ত ছিল। কিন্তু পাওয়ার প্লে-তে মোমেন্টাম পেয়ে গেল সানরাইজার্স। যখন ডেভিড ওয়ার্নারের মত কোনও ব্যাটসম্যান এমন সংহার মূর্তি ধারণ করে, তখন এই রানও বোলারদের জন্য কম হয়ে যায়।’ উল্লেখ্য, এখনও অবধি আইপিএলের ইতিহাসে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের সবচেয়ে বড় রান তাড়া করে জয়ের নজির এটাই। বিপক্ষ দলনায়ক রাহানের কথাতেই পরিষ্কার এদিনের ম্যাচে রয়্যালস আর জয়ের মাঝে প্রধান কাঁটা হয়ে উঠলেন ওয়ার্নারই।

আরও পড়ুন: সর্বোচ্চ রান তাড়া করে দুরন্ত জয় সানরাইজার্সের

তবে ওয়ার্নারের পাশাপাশি বিজয় শংকরেরও প্রশংসা শোনা যায় রাহানের মুখে। পাশাপাশি শতরানকারী স্যামসন প্রসঙ্গে রাজস্থান দলনায়ক জানান, ‘সেও ভীষণ হতাশ। তবে অনেকটা পথ চলা বাকি। ওকে ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে হবে।’ অন্যদিকে সানরাইজার্স অধিনায়কের মতে, ‘ওয়ার্নার-বেয়ারস্টোর গড়ে দেওয়া ভিতই দলের ম্যাচ জয় অনেক সহজ করে দিয়েছে।’ এদিনের ম্যাচ জয় যে কোনওমতেই সহজ ছিল না তা স্বীকার করে এই জয়কে ‘দলগত প্রচেষ্টার ফসল’ হিসেবে ব্যাখ্যা করেছেন হায়দরাবাদের কিউই অধিনায়ক।

আরও পড়ুন: স্লো-টার্নার পিচ টি-২০ ক্রিকেটের উপযুক্ত নয়: উথাপ্পা

বল হাতে ২৪ রান খরচ করে ১ উইকেট নেওয়ার পাশাপাশি ব্যাট হাতে এদিন হায়দরাবাদে ফিনিশারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হন আফগান স্পিনিং অল-রাউন্ডার রশিদ খান। জয়ের পর ম্যাচের সেরা রশিদ জানান, ‘ইতিবাচক হয়ে প্রত্যেক ম্যাচে সব বিভাগেই নিজের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করি। এদিনের পারফরম্যান্স তারই প্রমাণ।’