মুম্বই: খ্যাতির সঙ্গে হ্যাপির বিড়ম্বনাও আসে। এই অভিজ্ঞতা সবচেয়ে বেশি হয় সেলিব্রিটিদের। তাঁদের সম্পর্কে কিছু একটা চাউর হলে তা ছড়িয়ে পড়তে বেশি সময় লাগে না। অভিনেত্রী ঐশ্বর্য রাইকে নিয়েও বলিউডে ছিল নানা রকমের গুঞ্জন। একসময় সেই গুঞ্জনের সূত্র ছিল প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তান।

২০০৮ থেকে ২০১৩ পর্যন্ত পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ছিলেন আসিফ আলি জারদারি। রাজনৈতিক কারণে তিনি বেনজির পুত্রকে বিয়ে করেছিলেন এবং পাকিস্তানে প্লে-বয় হিসেবেও তিনি একসময় নাকি জনপ্রিয় ছিলেন। এই আসিফ আলি জারদারির সঙ্গে নাম জড়িয়েছিল বলিউড অভিনেত্রী ঐশ্বর্য রাইয়ের।

পাকিস্তানের রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ শাহিদ মাসুদ তাঁর একটি আর্টিকেলে লিখেছিলেন পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি ভবনে অনুষ্ঠান করার জন্য ঐশ্বর্যকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন আসিফ আলি জারদারি। এর জন্য নাকি তাঁকে ১০ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছিল। সেই সময় খবর ছড়ায় যে এক রাতে মনোরঞ্জনের জন্য ১০ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছিল ঐশ্বর্য রাইকে। তবে এই বিষয়ে ভারত ও পাকিস্তানের কেউই অবহিত ছিলেন না। আসিফ আলি জারদারির কোনো ঘনিষ্ঠ সূত্র শাহিদ মাসুদকে এই খবর দিয়েছিলেন বলে জানা যায় শাহিদ মাসুদকে এই খবর দিয়েছিলেন বলে জানা যায়।

তবে এই তথ্য কতটা সত্য তা নিয়ে ধোঁয়াশা থেকে গিয়েছে। কারণ এমন কোন তথ্য পাওয়া যায়নি যা থেকে প্রমাণ হয় সত্যিই ঐশ্বর্য রাই পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি ভবনে পারফর্ম করে ১০ কোটি টাকা নিয়েছিলেন। আর তাই এই বিষয়টিতে খুবই ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন অভিনেত্রী। তিনি যে সেখানে গিয়ে পারফর্ম করেছেন এমন কোন ভিডিও পর্যন্ত কেউ প্রকাশ করতে পারেননি।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।