কলকাতা: যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন বিরোধী মঞ্চে বাম-নেত্রী ঐশী ঘোষ। বক্তৃতায় তুলোধনা করলেন মোদী সরকারকে। দেশজুড়ে বিজেপি বিভাজনের রাজনীতি করছে বলে তোপ দাগলেন ঐশী। একইসঙ্গে সবার জন্য নাগরিকত্বের সওয়াল বামনেত্রীর।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে দেশজুড়ে আন্দোলনে বিজেপি-বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি। কলকাতাতেও সেই বিক্ষোভের আঁচ পড়েছে। যাদবপুর, প্রেসিডেন্সি, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের একটি বড় অংশ পথে নেমে সিএএ ইস্যুতে কেন্দ্র-বিরোধিতায় সামিল। শুক্রবার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সিএএ বিরোধী সমাবেশে যোগ দেন দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের বাম ছাত্র সংসদের সভানেত্রী ঐশী ঘোষ। সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় ঐশী আগাগোড়া ছিলেন আক্রমণাত্মক।

দেশজুড়ে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার বিভাজনের রাজনীতি করছে বলে তোপ দাগেন ঐশী। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন তৈরি করে দেশের সংবিধানকেই লঙ্ঘন করা হয়েছে বলে অভিযোগ এসএফআই নেত্রীর। কেন্দ্রকে হুঁশিয়ারি দিয়ে এদিন ঐশী বলেন, ‘দেশে বিভাজনের রাজনীতি চলছে। ধর্মের নামে বিভাজনের রাজনীতি বরদাস্ত করব না। এসফআইকে ভয় পাচ্ছে বিজেপি ও আরএসএস।’ সিএএ-র বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন বামনেত্রী ঐশী ঘোষ।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে ক্রমেই কেন্দ্র-বিরোধী সুর চড়া হচ্ছে। একের পর এক রাজ্যে সিএএ বিরোধী প্রস্তাব পাশ হচ্ছে। কেরল, রাজস্থান, পঞ্জাব, পশ্চিমবঙ্গের পাশাপাশি মধ্যপ্রদেশ বিধানসভাতেও পাশ হয়েছে নাগরিকত্ব আইন বিরোধী প্রস্তাব। একইসঙ্গে একাধিক রাজ্যই সিএএ-র বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছে। রাজ্যে-রাজ্যে বিধানসভাগুলিতে সিএএ বিরোধী প্রস্তাব পাশ করিয়ে আদতে কেন্দ্রের উপর চাপ বাড়ানোর কৌশল নিয়েছে বিরোধীরা।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ করে দেশের মধ্যে সর্বপ্রথম সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেছে বামশাসিত কেরল। একইসঙ্গে এনআরসিরও বিরোধিতা করে রাজ্যে বন্ধ রাখা হয়েছে এনপিআর-এর কাজও। পশ্চিমবঙ্গেও কোনওমতেই সিএএ-এনআরসি কার্যকর করা হবে না বলে সাফ জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী বন্দ্যোপাধ্যায়।

সিএএ ইস্যুতে বামেরাও প্রবলভাবে কেন্দ্র-বিরোধিতায় সরব। বিশেষত বাম ছাত্র-সমাজ সিএএ নিয়ে দেশজুড়ে কেন্দ্র-বিরোধিতায় সামিল হয়েছে। দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে সিএএ ইস্যুতে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন বাম-মনোভাবাপন্ন ছাত্ররা। আন্দোলনের নেতৃত্ব দিচ্ছেন ছাত্র সংসদের সভানেত্রী ঐশী ঘোষ। দুর্গাপুরের মেয়ে ঐশীর কেন্দ্র-বিরোধী এই কড়া মনোভাবকেই কাজে লাগাতে চাইছে এরাজ্যের বামেরাও। আর তাই সিএএ ইস্যুতে ঐশীকে রাজ্যে এনে কেন্দ্র-বিরোধিতায় সুর আরও চড়াচ্ছেন বাম নেতারা।