Airtel

নয়া দিল্লিঃ ভারতের প্রথম সারির টেলিকম অপারেটর এয়ারটেল সম্প্রতি ডিজিগোল্ড (DigiGold) নামে একটি নতুন ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম চালু করেছে। সোনায় বিনিয়োগ করতে চায় এমন গ্রাহকদের জন্য চালু করা হচ্ছে ডিজিগোল্ড (DigiGold) পরিষেবা। নতুন ডিজিটাল প্লাটফর্মটি চালু করতে সংস্থা সেফগোল্ড-এর সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করছে।

অংশীদারিত্বের অধীনে, টেলিকম সংস্থার এয়ারটেল পেমেন্ট ব্যাঙ্ক (Airtel Payments Bank) সেভিংস অ্যাকাউন্ট এর সমস্ত গ্রাহকরা সংস্থার থ্যাংকস অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে ২৪ কে সোনা বিনিয়োগের অনুমতি পাবে। এছাড়াও গ্রাহকরা ডিজিগোল্ড (DigiGold) উপহারটি পাঠাতে পারবে সংস্থার পেমেন্ট ব্যাঙ্কে অ্যাকাউন্ট (Airtel Payments Bank) আছে পরিবারের এমন সদস্য এবং বন্ধুদেরকে।

গ্রাহকরা যাতে এয়ারটেল পেমেন্ট ব্যাঙ্কে (Airtel Payments Bank) নিয়মিত বিনিয়োগ করতে পারে সে কারণে সংস্থা সিস্টেমেটিক ইনভেস্টমেন্ট প্লান লঞ্চ করার পরিকল্পনা করছে। এর পাশাপাশি সংস্থা জানিয়েছে, ব্যাঙ্কে সোনা সুরক্ষার জন্য গ্রাহকদের কোনো অতিরিক্ত ব্যয় করতে হবে না।

এয়ারটেল সংস্থার তরফে আরও বলা হয়েছে যে, ব্যবহারকারীরা পেমেন্ট ব্যাঙ্কে (Airtel Payments Bank) এক টাকা দিয়েও বিনিয়োগ করতে পারে। তবে সংস্থার ডিজিগোল্ড (DigiGold) ব্যবহার করার জন্য বেশ কিছু পদক্ষেপ অতিক্রম করতে হবে ব্যবহারকারীদের।

ডিজিটাল পরিষেবা গ্রহণ করার জন্য প্রথমে গ্রাহকদের এয়ারটেল থ্যাংকস অ্যাপ্লিকেশনটি (Airtel Thanks Application) ডাউনলোড করতে হবে। এরপরে এই অ্যাপ্লিকেশনে শংসাপত্রগুলি প্রদান করে লগইন করলে ব্যাঙ্কিং এবং ডিজিটাল বিকল্প প্রদর্শিত হবে, যা নির্বাচন করতে হবে গ্রাহকদের। পরের ধাপে সোনা ক্রয় করা এবং ইনভেস্ট অপশন নির্বাচন করে ক্রয় করতে চাওয়া টাকার পরিমাণ প্রদান করতে হবে। পেমেন্ট করার জন্য এয়ারটেল পেমেন্ট ব্যাঙ্ক (Airtel Payments Bank) এবং নেট ব্যাঙ্কিং এর সুবিধা মিলবে গ্রাহকদের।

গ্রাহকরা চাইলে তাদের ক্রয় করা সোনা বিক্রি করতে পারে। সেক্ষেত্রে গ্রাহককে ক্রয় করার এক দিন পর ডিজিগোল্ড (DigiGold) সেল অপশনে ক্লিক করতে হবে এবং এরপরে ব্যাঙ্কের নাম সহ আইএফএসসি (IFSC) কোড উল্লেখ করে প্রদান করলে বিক্রি প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। বিক্রি করা সোনার মূল্যের জন্য এমপিআইএন (MPIN) বিকল্প প্রবেশ করে এগিয়ে চলার বিকল্পটি নির্বাচন করলে ২৪ থেকে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে নির্দিষ্ট অ্যাকাউন্টে টাকা ক্রেডিট হয়ে যাবে গ্রাহকের।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.