ফাইল ছবি৷

নয়াদিল্লি: রিল লাইফের ছবিকে হার মানাল রিয়্যাল লাইফের ঘটনা। আমরা অনেক সময় বিভিন্ন সিনেমাতে দেখেছি প্রেমিকা বা বউয়ের অভিমান ভাঙাতে কতই না কিছু করতে হয়েছে নায়ককে। এয়াপোর্টে ছুটে গিয়ে থামাতে হয়েছে প্রেমিকাকে। এবার হিন্দি সিনেমার মত সেই দৃশ্য ধরা পড়ল বাস্তবে দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে।

স্ত্রী দেশ ছেড়ে চলে যাচ্ছে। তাই আটকাতে এবার খোদ দিল্লি বিমানবন্দরে ভুয়ো কল করে বসল স্বামী। ঘটনার সূত্রপাত ঘটে গত ৮ অগস্ট দুপুরে। ব্যস্ত সময়ে যখন যাত্রীরা তাঁদের নিজেদের গন্তব্যস্থলে পৌঁছাতে বিমান ধরার জন্য অপেক্ষায় ছিলেন, ঠিক সেই সময়ই এক অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তি হঠাৎই দিল্লি বিমানবন্দরে ফোন করে সেখানকার কর্মরত আধিকারিকদের জানান যে, বিমানবন্দরে একজন মহিলা আত্মঘাতী জঙ্গি ঘুরে বেড়াছে। হঠাৎ এমন একটি ফোন পেয়ে তড়িঘড়ি করে ডাকা হয় দিল্লি পুলিশকে। নিরাপদ স্থানে সরিয়ে ফেলা হয় সকল যাত্রীদের। পুলিশ সমস্ত বিমান বন্দর চিরুনি তল্লাশি করেও সন্দেহজনক কিছু পায়নি।

তখন বিমানবন্দর থেকে ওই ফোন কলের সূত্র ধরে পুলিশ এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর পুলিশ জানিয়েছে ধৃত ওই ব্যক্তির নাম নাসিরুদ্দিন(২৯)। বউ দেশ ছেড়ে চলে যাচ্ছিল বলে তাঁকে আটকাতেই এমন ফন্দি আঁটে অভিযুক্ত। তিনি জানান কোনও ভাবেই যখন সে তাঁর স্ত্রী’কে দেশের বাইরে চলে যাওয়া আটকাতে পারছিল না তখন তিনি দিল্লি বিমানবন্দরে ফোন করে জানায় যে, সেখানে আত্মঘাতী বোমা নিয়ে এক জঙ্গি ঘুরছে।

এই আত্মঘাতী জঙ্গি আর কেউ নন তাঁর বউ রাফিয়া। অভিযুক্ত ঘটনার দায় স্বীকার করে পরে পুলিশ কে জানান যে, তিনি চেন্নাই এর একটি ব্যাগের কারখানায় কাজ করেন, ওই একই কারখানায় কাজ করতেন তাঁর স্ত্রী রাফিয়াও। সেখানেই তাঁদের দুজনের পরিচয় এবং পরে বিয়ে।

এতদিন সব ঠিকঠাক চললেও হঠাৎই তাঁর স্ত্রী ঠিক করেন যে, তিনি দেশ ছেড়ে বাইরে চলে যাবেন কাজ করতে। নাসিরুদ্দিন অনেক ভাবে স্ত্রী’কে বোঝানোর চেষ্টা করলেও সব উপায়ই বৃথা হয়ে যাচ্ছিল অবশেষে রাফিয়া যে দিন দিল্লি ছেড়ে কাজ করতে গুলফ চলে যাবেন বলে ঠিক করেন সেদিন দুপুর বেলাতেই রাফিয়ার ফ্লাইট ছাড়ার আগের মুহূর্তে বিমানবন্দরে ভুয়ো ফোন কল করে রাফিয়া কে আটকাতে শেষ চেষ্টা করেন বলে জানা গিয়েছে।