নয়াদিল্লি : নামেই ছুটি। আসলে কর্মী সংকোচনের পথে হাঁটতে চলেছে এয়ার ইন্ডিয়া। এয়ার ইন্ডিয়ার চেয়ারম্যান ও এমডির কাছে এই মর্মে একটি প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। প্রস্তাবে বলা হয়েছে সংস্থার বিভিন্ন দফতরে অয়োগ্য কর্মীদের ছেঁটে ফেলা হবে। বকলমে তাঁদের বেতনহীন ছুটিতে পাঠানো হবে অনির্দিষ্ট কালের জন্য। সেই মেয়াদ পাঁচ বছরও হতে পারে। এয়ার ইন্ডিয়ার বোর্ড এই তালিকা তৈরি করবে নিজেদের রিজিওনাল অফিসগুলির সাহায্যে।

যে ভাবে কর্মীদের কাজের মূল্যায়ন করা হবে তারও মাপকাঠি তৈরি করেছে বোর্ড। যোগ্যতা, কর্মদক্ষতা, সংস্থায় কতটা মানানসই ওই কর্মী, অতীতের কাজের খতিয়ান, স্বাস্থ্য-এই পয়েন্টগুলির বিচারে কোনও কর্মী কতটা যোগ্য তার মূল্যায়ন করা হবে বলে জানানো হয়েছে সংস্থার পক্ষ থেকে। এয়ার ইন্ডিয়ার সিএমডি রাজীব বনশল এই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন।

এয়ার ইন্ডিয়ার প্রতিটি অফিসেই নোটিশ পাঠানো হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে যে কোনও কর্মীকেই ছয় থেকে পাঁচ বছরের বেতনহীন ছুটিতে পাঠানো হতে পারে। মঙ্গলবার এই নোটিশ পাঠানো হয়। ইতিমধ্যেই এয়ার ইন্ডিয়ার আঞ্চলিক কর্তাদের এই বিষয়ে অবগত করা হয়েছে।

তাঁরাই মূলত অযোগ্য কর্মীদের তালিকা তৈরি করবেন। সেই তালিকা পৌঁছে দেওয়া হবে সদর দফতরে। করোনা পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়েই কর্মী ছাঁটাইয়ের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে সংস্থার তরফে। ইতিমধ্যেই এয়ার ইন্ডিয়াকে বেসরকারিকরণের উদ্যোগ নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। আন্তর্জাতিক বিমান পরিষেবা বন্ধ। অন্তর্দেশীয় পরিষেবাও নির্দিষ্ট পরিমাণে চলছে। ফলে আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে সংস্থা। তাই এই সিদ্ধান্ত।

এদিকে, আগামী ৩১ জুলাই পর্যন্ত আন্তর্জাতিক বিমান পরিষেবা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে অসামরিক বিমান পরিবহণ মন্ত্রক। দেশজুড়ে বেড়ে চলা করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধেই এই সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছে ডিজিসিএ। আপাতত দেশের আকাশে ৩১ জুলাই পর্যন্ত বিদেশের কোনও বিমান উড়বে না।

দেশের করোনা পরিস্থিতির কথা বিচার করে আর কোনও ঝুঁকি নিতে চায় না কেন্দ্রীয় সরকার। এই পরিস্থিতিতে আপাতত দেশের আকাশে আন্তর্জাতিক বিমান পরিষেবা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে অসামরিক বিমান পরিবহণ মন্ত্রক।

আগামী ৩১ জুলাই পর্যন্ত আন্তর্জাতিক বিমান পরিষেবা বন্ধ রাখা হবে বলে জানিয়েছে ডিজিসিএ। করোনা সংক্রমণের জেরে ভারতে গত ২৩ মার্চ থেকে বন্ধ রাখা রয়েছে আন্তর্জাতিক বিমান পরিষেবা। এর আগে ২৬ জুন আন্তর্জাতিক বিমান পরিষেবা নিয়ে আরও একটি বিবৃতি জারি করা হয়েছিল। সেই বিজ্ঞপ্তিতে দেশে ১৫ জুলাই পর্যন্ত আন্তর্জাতিক বিমান পরিষেবা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত জানানো হয়েছিল।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ