নয়াদিল্লি: সাম্প্রতিক সময়ে চিনের সঙ্গে ভারতের সীমান্ত বিরোধ চলছে। চিনের রাষ্ট্রপতি শি জিনপিং চিনা বাহিনীকে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত থাকতে বলেছেন। এমন পরিস্থিতিতে আরও শক্তিশালী হল ভারতীয় বায়ুসেনা। বুধবার বাহিনীতে যোগ দিল দেশীয় বিমানের দ্বিতীয় স্কোয়াড্রন তেজস।

এর নাম দেওয়া হয়েছে ফ্লাইং বুলেটস। এয়ার চিফ মার্শাল আরকেএস ভাদোরিয়া নিজেই এই বিমানটি প্রথমে উড়িয়েছেন। বুধবার সুলুর এয়ারফোর্স স্টেশনে আরকেএস ভাদোরিয়ার উপস্থিতিতে এই যুদ্ধবিমান সেনাবাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত হয়।

কোয়েম্বাটুরে ৪৫ টি স্কোয়াড্রনের পরে এই ১৮ নম্বর স্কোয়াড্রনে অন্তর্ভুক্ত হল দেশীয় পদ্ধতিতে তৈরি তেজস ফাইটার জেট। এখন থেকে এই স্কোয়াড্রন দেশে তৈরি লাইট কমব্যাট এয়ারক্র্যাফট তেজস মার্ক ওয়ান যুদ্ধবিমান ওড়াবে।

এই বিমানের বৈশিষ্টের মধ্যে রয়েছে, এটি আসলে চতুর্থ প্রজন্মের যুদ্ধবিমান। এটি আকারে অনেক ছোট ও হালকা। এছাড়া এই যুদ্ধবিমান হাওয়ার চেয়ে দ্রুতগতি সম্পন্ন।

স্বাধীনতার ১৮ বছর পর ১৯৬৫ সালে তৈরি করা হয়েছিল ১৮ নম্বর স্কোয়াড্রন। ১৯৭১ এ ভারত পাকিস্তান যুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়েছিল এই স্কোয়াড্রন। আগে এই স্কোয়াড্রন মিগ ২৭ যুদ্ধ বিমানটি ওড়াত। পাকিস্তানের সঙ্গে যুদ্ধের পাশাপাশি ফ্লাইং অফিসার নির্মল জিত সিং-কে মরণোত্তর ‘পরম বীর চক্র’তেও ভূষিত করা হয়েছিল।

তেজস ফাইটার এয়ারক্র্যাফ্টটিতে রয়েছে ফ্লাই বাই-ওয়্যার ফ্লাইট কন্ট্রোল সিস্টেম, ইন্টিগ্রেটেড ডিজিটাল এভিওনিক্স এবং মাল্টিমোড রাডার। এছাড়া এই বিমানের কাঠামো সংমিশ্রিত উপাদান দিয়ে তৈরি।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।