ছবি সৌজন্যে- এএনআই

নয়াদিল্লি : অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্স (AIIMS)-এর চিকিৎসকরা বৃহস্পতিবার হেলমেট ও ব্যান্ডেজ পরে রোগী দেখলেন। কলকাতায় চলতে থাকা চিকিৎসকদের বিক্ষোভের সমর্থনেই তাঁদের এহেন আচরণ বলে জানা যাচ্ছে। এমনকি শুক্রবার থেকে চিকিৎসকরা বয়কটের ডাক দিলেন।

সোমবার কলকাতার নীল রতন সরকার হাসপাতালে এক চিকিৎসকের উপরে হওয়া হামলার প্রতিবাদে পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে শুরু হয়েছে লাগাতার বিক্ষোভ। সেই ছায়া এবার নয়াদিল্লিতেও। সংবাদ সংস্থা পিটিআই সূত্রে জানা গিয়েছে, শুক্রবার চিকিৎসকরা কর্মবিরতির সিদ্ধান্তও নিয়েছেন। AIIMS-এর রেসিডেন্ট ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন‌ (RDA) কলকাতার এনআরএস মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের চিকিৎসকদের উপরে হওয়া হামলার ঘটনার নিন্দা করেছে। দাবি তুলেছে তাদের মতো যত সংগঠন রয়েছে সবাই প্রতীকি ধর্মঘটে অবতীর্ণ হোক।

RDA-র তরফে প্রকাশিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘‘চিকিৎসকদের হোস্টেলে অস্ত্র নিয়ে হামলা চালানো থেকে প্রমাণিত হয় আইন-শৃঙ্খলা সম্পূর্ণ ভেঙে পড়েছে। সরকার চিকিৎসকদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে।” ঘটনায় গোটা দেশের চিকিৎসকরাই অত্যন্ত মর্মাহত বলেও জানানো হয় বিবৃতিতে। RDA-র তরফে প্রকাশিত ওই বিবৃতিতে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সরকার দ্রুত প্রতিবাদী চিকিৎসকদের ব্যাপারে তৎপর ও মনোযোগী হয়ে তাঁদের জন্য নিরাপত্তার পরিবেশ তৈরি করুক। চিকিৎসকদের উপর হিংসা বন্ধ হোক, এই দাবিতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে বিক্ষোভও দেখান চিকিৎসা কর্মীরা।

মঙ্গলবার থেকে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে বনধ ডেকেছেন চিকিৎসকরা। বৃহস্পতিবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চিকিৎসকদের হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, চিকিৎসকরা দুপুর দু’টোর মধ্যে যেন কাজে যোগ দেন। কিন্তু চিকিৎসকরা তাতে রাজি হননি। তাঁদের বক্তব্য, যতক্ষণ না রাজ্য সরকারের তরফে সঠিক নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হচ্ছে, তাঁরা কাজে ফিরবেন না। মমতা অবশ্য এই ঘটনাকে বিজেপি ও সিপিআইএমের ‘চক্রান্ত’ বলে দাবি করেছেন। বিজেপি নেতা মুকুল রায় দাবি করেছেন, অভিযুক্তরা তৃণমূল-ঘনিষ্ঠ।