ফাইল ছবি। প্রতিবেদনের সঙ্গে কোনও যোগ নেই।

কলকাতাঃ  অগ্নিগর্ভ যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়। দফায় দফায় হেনস্তা কেন্দ্রীয়মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়কে। অবস্থা এমন জায়গায় পৌঁছয় যে ঘটনাস্থলে পৌঁছতে হয় খোদ রাজ্যপালকে। যাদবপুরে শুধু কেন্দ্রীয়মন্ত্রীকে হেনস্তা করা নয়, বিক্ষোভের মধ্যে পড়তে হয় বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পলকেও। এরপরেই বিজেপি নেত্রীর হুঁশিয়ারি, ‘যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষিত ছেলেমেয়ে পড়াশুনো করে। এরাই আবার অসহিষ্ণুতা ও গণতন্ত্রের কথা বলে।

আজ বৃহস্পতিবার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যান কেন্দ্রীয়মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। তাঁর সঙ্গেই ওই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত ছিলেন অগ্নিমিত্রা পাল। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রছাত্রীদের নবীববরন অনুষ্ঠান ছিল। আর সেখানেই দুজনে যোগ দিতে যান। আর সেখানে গিয়েই বিক্ষোভের মধ্যে পড়ে যান বাবুল এবং অগ্নিমিত্রা। সেখানে এক সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিজেপি নেত্রী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে এবিভিপির একটি অনুষ্ঠানে এসেছিলাম।

কিন্তু যেভাবে এখানকার পড়ুয়ারা বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করল তা মেনে নেওয়া যায় না। শুধু তাই নয়, অভিনেত্রীর আরও মারাত্মক অভিযোগ, শাড়ি ছিঁড়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছে। মারধর করেছে। কোনওরকমে স্টেজে উঠেছি। একই অবস্থা বেরোনোর সময়। লেফট ফ্রন্টের হাজার হাজার ছেলেরা বাইরে দাঁড়িয়ে ছিল বলে প্রশ্ন অগ্নিমিত্রা পালের। ওই সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে অভিনেত্রী বলেন, বাবুলকে মেরেছে। সেই সময় আমাকেও ওরা ছাড়েনি। আমি বেরোতে পারিনি। আমাকেও মেরে ফেলত বলে অভিযোগ করেন তিনি।

সেখানে দাঁড়িয়েই অগ্নিমিত্রার প্রশ্ন, ওরা বিক্ষোভ করছে না মারছে? অন্যদিকে পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধেও অভিযোগ করেছেন প্রথম সারির এই নেত্রী। তাঁর অভিযোগ, ঘটনার সময় পুলিশ কোনও কাজই করেনি। সম্পূর্ণভাবে নিষ্ক্রিয় ছিল বলে অভিযোগ।