প্রতীতি ঘোষ, ব্যারাকপুর: শিয়ালদহ শাখার গুরুত্বপূর্ণ শ্যামনগর রেল স্টেশন৷ এই স্টেশনের ৪ নম্বর প্ল্যাটফর্মে বন্ধ হয়ে আছে একটি টিকিট কাউন্টার৷ এবার সেই টিকিট কাউন্টারটি খোলার দাবীতে আন্দোলনে নেমেছে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতা কর্মীরা৷

শিয়ালদহ রানাঘাট শাখার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ স্টেশন শ্যামনগর রেল স্টেশন৷ এই রেলওয়ে স্টেশনের ৪ নম্বর প্ল্যাটফর্মের কাছে থাকা রেলের একটি টিকিট কাউন্টার দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ রয়েছে৷ তার ফলে ৪ নম্বর প্ল্যাটফর্মের দিক থেকে আসা রেল যাত্রীদের ১ নম্বর প্লাটফর্মে এসে টিকিট কাটতে হচ্ছে৷ এক নম্বর প্ল্যাটফর্মের টিকিট কাউন্টারের ওপরই তাদের ভরসা করতে হয় ট্রেনের টিকিট কাটার জন্য৷ মাঝেমধ্যে ৪ নম্বর থেকে ১ নম্বর টিকিট কাউন্টারে টিকিট কাটতে গিয়ে ট্রেন মিস হয়ে যায়৷ তাড়াহুরু করতে গিয়ে ফুট ব্রিজের পরিবর্তে রেল লাইন দিয়ে যাত্রীরা যাতায়াত করেন৷ তাতে যে কোনও সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে৷

অভিযোগ, চার নম্বর থেকে এক নম্বর প্ল্যাটফর্মে টিকিট কাটতে এসে ওই কাউন্টারে রেলযাত্রীদের দীর্ঘক্ষণ লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়৷ তাই বন্ধ হয়ে পড়ে থাকা টিকিট কাউন্টার দ্রুত চালু করার দাবিতে স্টেশন প্রবন্ধকের কাছে বৃহস্পতিবার স্মারকলিপি জমা দিল তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতাকর্মীরা৷

উল্লেখ্য বহুবছর আগে শ্যামনগরের মানুষদের কথা ভেবে ও তাদের দাবি মেনে বেশ ঘটা করেই শ্যামনগর রেল স্টেশনে ৪ নম্বর প্ল্যাটফর্মে একটি টিকিট কাউন্টারে উদ্বোধন করা হয়েছিল৷ সেই সময় ওই টিকিট কাউন্টারে উদ্বোধন করেছিলেন পদ্মশ্রী পি কে বন্দোপাধ্যায়, পণ্ডিত অজয় চক্রবর্তী প্রমুখ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ৷ কিন্তু টিকিট কাউন্টারে উদ্বোধন হবার কিছু দিন পর থেকেই বন্ধ হয়ে যায় ওই টিকিট কাউন্টারটি।

তার ফলে আগে টিকিট কাটার ক্ষেত্রে যেমন অসুবিধা হতো শ্যামনগরে বাসিন্দাদের, ঠিক তেমনই ফের সমস্যা সম্মুখীন হচ্ছেন তারা। তাই শ্যামনগরের রেল যাত্রীদের সুবিধা ও নিরাপত্তার কথা ভেবেই আন্দেলনে নেমেছেন তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতা কর্মীরা৷ তাদের দাবি শ্যামনগর স্টেশনের ৪ নম্বর প্ল্যাটফর্মের টিকিট কাউন্টারটি পুনরায় চালু করতে হবে৷ তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতা ও কর্মীদের বক্তব্য, সাধারণ মানুষসহ স্কুল ও কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরাও সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে৷ আন্দোলনকারীরা স্টেশন প্রবন্ধকের কাছে লিখিতভাবে জানিয়েছেন, আগামী ৭ দিনের মধ্যে ৪ নম্বর প্লাটফর্মের কাছে বন্ধ টিকিট কাউন্টারটি চালু না হলে, তাহলে তারা অবস্থান-বিক্ষোভে বসবেন স্টেশন চত্বরেই৷

শ্যামনগর রেলওয়ে স্টেশনের প্রবন্ধকের বক্তব্য, মানুষের নানান রকম সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে জানি, তিনি বিষয়টি নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলবেন৷ তিনি আশ্বাস দেন, খুব তাড়াতাড়ি এই সমস্যার সমাধান হবে নিত্য যাত্রীদের স্বার্থে৷

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা