মালদহ:   গণধর্ষণের অভিযোগ না নিয়ে সালিশি সভায় বিষয়টি মিটিয়ে নেওয়ার পরামর্শ। অভিযুক্ত মালদহের গাজোল থানার পুলিশ। অভিযোগ, সাড়া মেলেনি জেলার পদস্থ কর্তাদের কাছ থেকেও। শেষ পর্যন্ত জেলা বার অ্যাসোসিয়েশনের দ্বারস্থ হন নির্যাতিতা। যদিও শেষমেশ ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন পুলিস সুপার।
স্বামী কর্মসূত্রে বাইরে থাকায় মাকে নিয়ে বাড়িতে একাই থাকতেন কৃষ্ণপুর গোয়ালপাড়ার বাসিন্দা ওই মহিলা। দশই মে ছয় দুষ্কৃতী চড়াও হয়তাঁর বাড়িতে। অভিযোগ, এরপর মায়ের গলায় ধারাল অস্ত্র ঠেকিয়ে পাশের ধানক্ষেতে নিয়ে গিয়ে মহিলাকে ধর্ষণ করে চার দুষ্কৃতী।
পর দিন অভিযোগ জানাতে গ্রামবাসীদের সঙ্গে নিয়ে গাজোল থানায় যান মহিলা। মহিলার দাবি, পুলিস বিষয়টি সালিশি সভায় মিটিয়ে নেওয়ার পরামর্শ দেয় । সুবিচারের আশায় এসপি অফিসেও অভিযোগ জানাতে যান নির্যাতিতা। কিন্তু অভিযোগ নেওয়া হয়নি বলে তাঁর দাবি ।
শেষ পর্যন্ত মালদহ বার অ্যাসোসিয়েশনের দ্বারস্থ হন নির্যাতিতা। সব শুনে আইনজীবীরা চিঠি মারফত্‍ জেলা পুলিস সুপারের কাছে ও গাজোল থানায় অভিযোগ জানানোর সিদ্ধান্ত নেন। এই ঘটনায় মোট ছজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছেন নির্যাতিতা।