স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: এক মাসের মাথায় আবার শহরে উদ্বোধন হল বাইক-ট্যাক্সি পরিষেবার। এবারেও পরিষেবা সেই রাজারহাট-নিউ টাউনের জন্যেই। বুধবার পশ্চিমবঙ্গ ট্রান্সপোর্ট কর্পোরেশনের ময়দান টেন্ট থেকে এই পরিষেবার উদ্বোধন করেন রাজ্যের পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।

আর পড়ুন: শহরে চালু হল বাইক-ট্যাক্সি

চলতি বছরের মার্চ মাসের মাঝামাঝি শহরে প্রথম যাত্রা করেছিল বাইক-ট্যাক্সি। প্রাথমিক অবস্থায় পাইলট প্রজেক্ট হিসেবে রাজারহাট-নিউটাউনের রাস্তায় চালানো হয় বাইক-ট্যাক্সি। ঠিক হয়েছিল সাধারণ মানুষের প্রতিক্রিয়া দেখে ধাপে ধাপে শহরে পরিষেবার বহর বাড়াবে বাইক-ট্যাক্সির। তাই বলে এক মাসের মধ্যেই পরের ধাপের পরিষেবা চালু হয়ে যাবে তা স্থির ছিল না। এমনটা আঁচ করতে পারেননি পরিবহণ দফতরের কর্তারাও। বেশ জনপ্রিয় এবং লাভজনক হওয়ার কারণেই এত দ্রুত ফের বাইক-ট্যাক্সি পরিষেবা চালু করা হচ্ছে বলে জানাচ্ছেন পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। তাঁর কথায়, “মার্চ মাসে পাইলট প্রজেক্ট হিসেবে বাইক-ট্যাক্সি পরিষেবা চালু হয়েছিল। সাধারণ মানুষের কাছে বেশ জনপ্রিয় হচ্ছে এই পরিষেবা। রোজ শতাধিক মানুষ এই বাইক-ট্যাক্সি পরিষেবা গ্রহণ করছেন।”

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের উদ্যোগে বেসরকারি সংস্থার পরিচালনায় শুরু হয়েছে বাইক-ট্যাক্সি পরিষেবা। গত মার্চ মাসে একটি বেসরকারি সংস্থার হাত ধরে বাইক-ট্যাক্সি পরিষেবার যাত্রা শুরু হয়। এবার আবারও অন্য একটি সংস্থা এগিয়ে এল বাইক ট্যাক্সি পরিষেবা নিয়ে। যদিও এই সংস্থার দাবি, “আমরাই প্রথম এই বাইক-ট্যাক্সি পরিষেবার পরিকল্পনা করেছিলাম। পরিবহণ দফতরের সঙ্গে এই নিয়ে কথাও হয়েছিল। পদ্ধতিগত ত্রুটির কারণে আমরা প্রথমে চালু করতে পারলাম না।” সকল যাত্রীদের জন্য হেলমেট এবং মহিলাদের স্বছন্দ্যের জন্য যাবতীয় ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে বলে এই সংস্থার তরফ থেকে জানিয়েছেন জনসংযোগ আধিকারিক শুভপ্রসাদ ভট্টাচার্য্য।

মোটর ভেহিকেল্‌স আইনের ২(‌৭)‌ধারা অনুযায়ী চুক্তির ভিত্ততে এগুলিকে পরিবহণ সংস্থাকে বাইক-ট্যাক্সি পরিষেবা প্রদাণের বরাত দেওয়া হবে। আগ্রহী সংস্থার কাছে কমপক্ষে ১৫টি বাইক থাকতে হবে। একইসঙ্গে স্থানীয় আরটিএ অনুমোদন লাগবে। রাজ্য পরিবহণ দফতর সূত্রে খবর, প্রাথমিক অবস্থায় ২০০ টি বাইক নামানো হচ্ছে। দ্বিতীয় দফায় এদিন ২২টি বাইক নামানো হল। প্রথম দুই কিলোমিটার পর্যন্ত যেতে এই বাইক ট্যাক্সিতে ভাড়া লাগবে ২০ টাকা। এরপর কিলোমিটার প্রতি অতিরিক্ত পাঁচ টাকা করে ভাড়া গুনতে হবে।

দিনে ১২ ঘণ্টা পর্যন্ত চালু থাকবে এই পরিষেবা। সকাল আটটা থেকে পরিষেবা শুরু করবে বাইক-ট্যাক্সি। খুব শীঘ্রই মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমেও বুক করা যাবে বাইক-ট্যাক্সি। আইন মেনে অন্য কোনও সংস্থা এই পরিষেবা দেওয়ার জন্য আবেদন করলে সেই সংস্থাকেও অনুমোদন দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।

বুধবার বিকেলে ময়দানের ডব্লুবিটিসি টেন্ট থেকে এই প্রকল্পের উদ্বোধন করেন রাজ্যের পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের পরিবহণ সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়, বিধায়ক সুজিত বসু সহ অন্যান্যরা।