স্টাফ রিপোর্টার , হাওড়া: এক সপ্তাহও যায়নি। বাগনান গোপালপুরের ঘটনার বাগনান থানার বাঙালপুর পঞ্চানন্দতলায় ফের এক মহিলাকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠল। এবার অভিযোগের তীর এলাকারই একশো দিনের কাজের সুপারভাইজারের বিরুদ্ধে। জানা গিয়েছে, ধৃতের নাম বাবলু চ্যাটার্জী।

রবিবারই নিগৃহীতা প্রৌঢ়া বাগনান থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ওই দিনই পুলিশ বাবলুকে গ্রেফতার করে। বাবলুকে উলুবেড়িয়া মহকুমা আদালতে তোলা হয়। সেই সময় অভিযুক্তের কঠোর শাস্তির দাবিতে কোর্ট চত্বরের সামনে বিক্ষোভ দেখায় এস.এফ.আই,ডি.ওয়াই.এফ.আই ও মহিলা সমিতি সহ একাধিক বাম সংগঠনের সদস্য-সদস্যারা।

প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার গভীর রাতে বাগনানের গোপালপুরে মেয়েকে শ্লীলতাহানির থেকে বাঁচাতে গিয়ে মৃত্যু হয় মায়ের। প্রতিবেশীদের দাবি, শ্লীলতাহানির শিকার ওই ছাত্রী রাতে বাড়ির ছাদে দাঁড়িয়ে ফোনে কথা বলছিলেন। অভিযোগ, সেই সময় পাঁচিল টপকে কার্নিস বেয়ে ছাদে উঠে আসে স্থানীয় পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যের স্বামী কুশ বেরা। তিনি নিজে ওই এলাকার দাপুটে তৃণমূল নেতা। অভিযোগ, কুশ ছাদে উঠে পিছন থেকে ওই ছাত্রীকে জাপটে ধরে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করেন। ভয় পেয়ে চিৎকার করে ওঠেন ওই কলেজছাত্রী। সেই চিৎকার শুনে ছাদে উঠে আসেন ছাত্রীর মা। প্রতিবেশীদের একাংশের কথায়, অভিযুক্ত সেই সময় ছাত্রীর মাকে ধাক্কা মেরে সিঁড়ি দিয়ে নেমে পালিয়ে যান। ধাক্কা খেয়ে টাল সামলাতে না পেরে সিঁড়ি দিয়ে পড়ে মাথায় আঘাত পান ছাত্রীর মা। রাতেই তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় বাগনান গ্রামীণ হাসপাতালে। সেখানে তাঁর অবস্থার অবনতি হওয়ায় স্থানান্তরিত করা হয় উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতালে। সেখানেই বুধবার সকালে মৃত্যু হয়েছে ওই মহিলার।

এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই এলাকায় বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তাঁরা থানায় জমায়েত হয়ে অবিলম্বে অভিযুক্তকে গ্রেফতারের দাবি জানান। পরে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়। পড়ে তৃণমূল দল থেকে বহিস্কার করা হয় অভিযুক্ত ও তার স্ত্রী’কে।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV