প্রতীতি ঘোষ, বারাকপুর: প্রেস্টিজ ফাইটে তৃণমূল কংগ্রেস তথা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে পরাজিত করে বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্র এবং একই সঙ্গে ভাটপাড়া বিধানসভা কেন্দ্রের জয় ছিনিয়ে নিলেন অর্জুন সিং। ভোটে জিতেই প্রাক্তন নেত্রী মমতাকে আক্রমণ করলেন বারাকপুরের সাংসদ।

এক দশক আগে এই অর্জুন সিং-এর ভরসাতেই বারাকপুরের সাংসদ হয়েছিলেন দীনেশ ত্রিবেদী। ২০১৪ সালেও তিনি জিতেছিলেন অর্জুনের ভরসাতেই। ডবল হ্যাট্রিক করা দাপুটে বাম সাংসদ তড়িৎ বরণ তোপদারকে হারিয়েছিলেন। সেই বারাকপুরেই হ্যাট্রিক করা হল না তৃণমূলের দীনেশের। একসময়ের সেনাপতি অর্জুন সিং-এর কাছেই ১৮৬১৩ ভোটে পরাস্ত হতে হয়েছে তাঁকে।

বারাকপুরের লোকসভা নির্বাচনের প্রার্থীপদ নিইয়ে বিতর্কের কারণেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি শিবিরে নাম লিখিয়েছিলেন অর্জুন। সেই বারাকপুর থেকেই তাঁকে প্রার্থী করে বিজেপি। এই প্রেস্টিজ ফাইটে পুরনো নেত্রী মমতাকে পরাস্ত করে বারাকপুর শিল্পাঞ্চল বাসী এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে জয় উৎসর্গ করেন তিনি। এদিন জয়ের পর অর্জুন সিং প্রথম প্রতিক্রিয়ায় বলেন, “আমি বারাকপুর বাসী কে ধন্যবাদ দিতে চাই তারা স্থায়ী সরকার গড়ার লক্ষ্যে ভোট দান করেছেন।”

তৃণমূলের হয়ে বহুবার বিধানসভা ভোটে জিতেছেন অর্জুন। কিন্তু বিজেপির হয়ে যাত্রাপথ খুব একটা সহজ ছিল না তাঁর। তিনি বলেছিলেন, “আমাকে পুলিশের সঙ্গে গুণ্ডা দিয়ে ভয় দেখিয়ে অনেক ভাবে হেনস্থা করবার চেষ্টা করা হয়েছে। ভাটপাড়ায় ওরা গিয়ে দাঙ্গা লাগিয়ে আমাকে বদনাম করেছে। কিন্তু মানুষ আমার সঙ্গেই ছিল সঙ্গেই আছে।”

এরপরেই নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করেন বারাকপুরের নবনির্বাচিত সাংসদ। বড় মাপের নেত্রী হলেও মমতার অনেক খামতি রয়েছে বলে দাবি করেছেন অর্জুন। দিদির প্রতি তাঁর পরামর্শ, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বলব উনি বড়ো নেত্রী সন্দেহ নেই। কিন্তু অন্যের চোখ দিয়ে রাজ্যটাকে দেখেছে বলে এরকম হওয়ারই ছিল।”

অদূর ভবিষ্যতে রাজ্যে বিজেপি সরকার গড়তে চলেছে বলে দাবি করেছেন অর্জুন সিং। এই রাজ্যে দলের সংগঠন মজবুত করতে কর্মীদের এবং বারাকপুরের শিল্পাঞ্চলের শ্রমিকদের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন বারাকপুরের সাংসদ। তাঁর কথায়, “রাজ্যে ভারতীয় জনতা পার্টির সরকার আসছে দল আমাকে দ্বায়িত্ব দিলে আমি এমন সংগঠন গড়ে তুলবো দলের কর্মীরা বুক চিতিয়ে লড়াই করবে কেউ লড়াইয়ের ময়দান ছাড়বে না। বারাকপুর শিল্পাঞ্চলকে নতুন করে বাঁচিয়ে তুলতে হবে শ্রমিক দের পাশে আমি ছিলাম আছি থাকব।”