নয়াদিল্লি: গত অক্টোবর মাসে সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ দিয়েছিল টেলিকম দফতরকে এজিআর পাওনা বাবদ টাকা মিটিয়ে দিতে হবে টেলিকম সংস্থাগুলিকে৷ এবার টেলিকম দফতর ওই টেলিকম সংস্থাগুলিকে জানিয়ে দিয়েছে আদালতের নির্দেশ মেনে শুক্রবার মধ্যরাতের মধ্যে এই পাওনা অর্থ মিটিয়ে দিতে হবে ৷

টেলিকম দফতরের দেওয়া ১৪ ফেব্রুয়ারির চিঠিতে বলা হয়েছে ,‘‘ লাইসেন্স ফি এবং স্পেকট্রাম চার্জ বাবদ যে বকেয়া রয়েছে তা ১৪ ফেব্রুয়ারি রাত ১১ টা ৫৯ মিনিটে পেমেন্ট করার জন্য আপনাকে নির্দেশ দেওয়া হল৷’’

সরকার তুলে নিয়েছে গত ২৩ জানুয়ারি যে নির্দেশ দিয়েছিল তাতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল টেলিকম সংস্থাগুলি আদালতের দেওয়া ওই সময়সীমার মধ্যে পেমেন্ট না করতে পারলে তাদের বিরুদ্ধে কোনও জোরজবস্তি করা হবে না৷ তারজন্য ১৪ ফেব্রুয়ারির অন্য চিঠিতে টেলিকম দফতর লিখেছে ,‘‘ সঙ্গে সঙ্গে ২৩জানুয়ারির নির্দেশ তুলে নেওয়া হল৷’’

টেলিকম সংস্থাগুলিকে অ্যাডজাস্টটেড গ্রস রেভেনিউ (এজিআর) বাবদ ১ লক্ষ ৪৭ হাজার কোটি টাকা বকেয়া মেটাতে  হবে সরকারকে ৷ যারমধ্যে ৯২,০০০কোটি টাকা সরকারকে দিতে হবে লাইসেন্স ফি বাবদ  এবং স্পেকট্রাম ফি বাবদ ৫৫,০০০ কোটি টাকা।

  এদিন সকালে আদালতের নির্দেশ সত্ত্বেও বকেয়া পরিশোধ না হওয়ার  কারণে টেলিকম সংস্থাগুলির পাশাপাশি সরকারের সমলোচনা করা হয় ৷

এদিকে এই ঘটনার প্রেক্ষিতে শীর্ষ আদালত টেলিকম সংস্থার কর্তাদের ১৭ মার্চ আদালতে হাজিরা দিতে বলেছে ৷ এয়ারটেল ওই পাওনা মেটাতে তিন বিলিয়ন ডলার তুলেছে আর জিও ২৩জানুয়ারি তার এজিআর বাবদ পাওনা মিটিয়ে দিয়েছে ৷

এই পরিস্থতিতে চরম দুশ্চিন্তায় রয়েছেন ভোডাফোন আইডিয়ার শীর্ষ কর্তারা। গত ডিসেম্বর মাসেই সংস্থার চেয়ারম্যান কুমার মঙ্গলম বিড়লা জানিয়েছিলেন, কেন্দ্রের সহায়তা ছাড়া এই বিপুল পরিমাণ বকেয়া মেটানো সম্ভব নয়। সে ক্ষেত্রে সংস্থার ঝাঁপ বন্ধ করারও আশংকাও দেখা গিয়েছিল৷ এই অবস্থায় কী ভাবে ভোডাফোন আইডিয়া এই বিপুল পরিমাণ বকেয়া মেটাবে তা নিয়েই সংশয় বিভিন্নমহল৷ আশংকা দানা বাড়ছে এই টেলিকম সংস্থার ঝাঁপ বন্ধ হওয়ার৷