নয়াদিল্লি: পুলওয়ামা হামলার পর নিরাপত্তা নিয়ে কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে মোদী সরকার। সেনাবাহিনীকে একাধিক বিষয়ে স্বাধীনতাও দেওয়া হয়েছে।

পাক সীমান্তে জোরদার করা হয়েছে নিরাপত্তা। জানা গিয়েছে, পাকিস্তানের সঙ্গে লড়াইতে যদি কখনও জরুরি ভিত্তিতে অস্ত্র কিনতে হয়, তাহলে সেনাবাহিনীর সেই ক্ষমতা রয়েছে। স্থল, জল ও আকাশ তিন বাহিনীরই আর্থিক ক্ষমতা বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

প্রত্যেকে জরুরি অবস্থায় ৩০০ কোটির পর্যন্ত অস্ত্র কিনতে পারে। এই অনুমোদনে সেনাবাহিনী ২৪৬টি অ্যান্টি-ট্যাংক গাইডেড মিসাইল কিনতে চাইছে। যা শত্রুপক্ষের ট্যাংক রেজিমেন্টকে ধ্বংস করে দিতে পারে।

নৌবাহিনী ও বায়ুসেনাও চাইছে মিসাইল কিনতে। যা দিয়ে পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধের প্রস্তুতি নেওয়া সম্ভব।

উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগেই দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি ধনুশ সোমবার তুলে দেওয়া হয় ভারতীয় সেনার হাতে৷

জব্বলপুরে ধনুশের হস্তান্তর হয়৷ বিদেশ থেকে আমদানি করা বোফর্স গানের তুলনায় ১১কিমি বেশি দূরের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম ধনুশ৷ যে কোনও ধরণের ভূখণ্ডে অর্থাৎ সমতল তো বটেই, পাহাড়ি এলাকা, মালভূমির মতো অসমান যেকোনও ভূখণ্ডে কাজ করতে সক্ষম এই ধনুশ৷ মেক ইন ইণ্ডিয়া প্রকল্পের অধীনে ধনুশ তৈরি করা হয়েছে৷ এটিই দেশের প্রথম লম রেঞ্জ আর্টিলারি গান বলে প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের তরফ থেকে জানানো হয়েছে৷