কলকাতা:  অথৈই জলে আটকে ছিল বাংলা ধারাবাহিক। শেষ বৈতরণী পাড় করালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতার বন্দোপাধ্যায়। আজ বৃহস্পতিবার শিল্পী ও প্রযোজকদের নিয়ে নবান্ন মিটিং করেন তিনি। আলোচনার শেষে উভয় পক্ষকে পাশে নিয়ে জানিয়েছেন ,” মা-ভাই-বোনেরা কাল থেকে আবার সবাই সিরিয়াল দেখতে পাবেন।”

গত ১৮ অগস্ট বন্ধ হয়ে যায় বহু বাংলা সিরিয়ালের শ্যুটিং। তার জেরে সোমবার থেকে চলছে সিরিয়ালের পুরনো এপিসোড। এরমাঝে দফায় দফায় হয়েছে মিটিং। কিন্তু সমস্যার সামাধান কিছুই হয়নি। শুধু চলেছে একে-অপরকে দোষারোপের পালা। প্রথমে অভিযোগ উঠেছিল শিল্পী-কলাকুশলীরাই স্টুডিওতে এসে সেজে গুজে রেডি হচ্ছেন ঠিকই। কিন্তু তাঁরা কোনও টেন দিচ্ছেন না। কিন্তু গতকাল আর্টিস্ট ফোরামের চেয়ারম্যান প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় জানিয়েদেন, ‘শিল্পীরা কাজ করতে অনিচ্ছুক এ কথা ঠিক নয়। তাঁরা কেবল নিজেদের বকেয়া টাকা চেয়েছেন। সেই দাবিতেই অনড় শিল্পী ও কলাকুশলীরা। কিন্তু কাজ ফোরামের তরফে বন্ধ করা হয়নি। প্রযোজকদের তরফে বন্ধ করা হয়েছে’।

আরও পড়ুন: ইদের দিন কী ‘SACRIFICE’ করলেন নুসরত?

অন্যদিকে বেসুরে কথা বলতে শুরু করেন প্রযোজকের। যার ফলে বিগত তিন দিন ধরে পুরনো পর্বে মন ভোলাতে হচ্ছে টেলি-দর্শকদের। তাই শেষে ধারাবাহিকের ধারাবাহিকার হাল ফেরাতে ময়দানে নামেন মমতার বন্দোপাধ্যায়। আজ নবান্নে অ্যার্টিস্ট ও প্রযোজজ উভয় পক্ষকে নিয়ে বৈঠকে বসেন তিনি। তারপরই সাংবাদিকদের জানিয়ে দেন, “শুক্রবার থেকে শুটিং শুরু হবে।” একই সঙ্গে তিনি আরও বলেন, “বাংলা সিরিয়ালের বন্ধ হওয়া কোনওভাবেই কাম্য নয়। বহু মানুষ সিরিয়াল দেখে অবসর সময় কাটান। এমনকি তিনি নিজেও একজন সিরিয়ালের দর্শক”। মমতার এই সিদ্ধান্তে খুশি সবপক্ষই। সমস্যার সমাধানের জন্য উভয় পক্ষই ধন্যবাদ জানিয়েছেন মমতাকে।

তবে এমন সমস্যা যাবে ভবিষ্যতে না হয়, সেজন্য এই বৈঠকে একটি কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যার প্রধান উপদেষ্টা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। এছাড়া এই কমিটিতে আর্টিস্ট ফোরামের দিক থেকে থাকবেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়, অরিন্দম গঙ্গোপাধ্যায়রা। প্রযোজকদের তরফ থেকে থাকবেন প্রকাশ মেহেতা, নিশপাল রানে। টেকনিশিয়ানদের পক্ষ রয়েছে স্বরূপ বিশ্বাসরা। এঁরা ছাড়াও এই কমিটিতে থাকবেন প্রযোজক ও চ্যানেলের প্রতিনিধিরা।

আরও পড়ুন:  বহুতল থেকে ঝাঁপ দিলেন দেব! তারপর?

এই কমিটির কাজ হবে প্রতিমাসে একটি করে বৈঠক করা। তাঁরা দেখবেন যাতে মাসের ১৫ তারিখের মধ্যে সব কলাকুশলীরা বেতন পেয়েছেন কিনা। তাছাড়া শিল্পী-কলাকুশলীদের প্রয়োজন, অসুবিধা আলোচনা হবে। আর খেয়াল রাখতে হবে যাতে ভবিষ্যতে শ্যুটিং বন্ধ হয়ে যায়, এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি না হয়। তাই আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করা হবে।

মানননীয় মুখ্যমন্ত্রীর এমন পদক্ষেপে খুশি সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। তিনি জানিয়েছেন, ” অনেক অনেক ধন্যবাদ মানননীয় মুখ্যন্ত্রীকে। আজ ওঁনার নেতৃত্বেই সমস্যার সমাধান হয়েছে। আর তিনি যে জয়েট কিমিটি তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা সত্যিই খুবই কাজের।