ওয়াশিংটন ও তেহরান: আবারও গরম পারস্য উপসাগরের জল৷ আবারও ইরান ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে তীব্র কূটনৈতিক গরম বক্তব্যের লড়াই শুরু৷ সীমান্তের কাছে ইরানি সেনা মার্কিন ড্রোন ধংস করার পর এবার কড়া জবাব দিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ তিনি বলেছেন, ‘বড় ভুল’ করেছে তেহরান৷ স্বাভাবিকভাবেই ট্রাম্পের এই মন্তব্য ঘিরে শুরু হয়েছে প্রবল আলোড়ন৷ সংবাদ সংস্থা এএফপি জানাচ্ছে এই খবর৷

এমনিতেই পারস্য উপসাগরে সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরশাহীর জাহাজে কমান্ডো অভিযান ঘিরে ইরান ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে তীব্র কূটনৈতিক লড়াই চলছে৷ আমেরিকা ও সৌদি ও আমিরশাহীর দাবি, এই হামলায় জড়িত ইরান৷ কিন্তু সেটা অস্বীকার করে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান সরকার৷ এর পরেই উপসাগরের বিখ্যাত হরমুজ প্রণালীর দিকে মার্কিন রণতরীকে যাওয়ার নির্দেশ দেয় পেন্টাগন৷ পাল্টা ইরানি নৌ সেনাও নিজেদের অবস্থান নিয়েছে৷ এর জেরে প্রবল উত্তেজনা ছড়িয়েছে মধ্য এশিয়া সহ আন্তর্জাতিক মহলে৷

এত সবের মধ্যে বৃহস্পতিবার ইরানি সীমান্ত লঙ্ঘন করে একটি মার্কিন ড্রোন ঢুকে পড়ে বলে অভিযোগ তেহরানের৷ সেই ড্রোনটি ধংস করে ইরানি সেনা৷ সেই খবর তেহরান থেকে সম্প্রচারিত করে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম৷ এপি, আল জাজিরা, বিবিসি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইরান সরকারে এই ড্রোন পাঠানোর ঘটনাকে উসকানিমূলক পদক্ষেপ হিসেবেই দেখছে৷ ইরানি সংবাদ সংস্থা ইরনা জানাচ্ছে- দেশের ইসলামি বিপ্লবী রক্ষী বাহিনী বা আইআরজিসি দক্ষিণাঞ্চলীয় উপকূল প্রদেশ হরমুজগানের কুহে মোবারক এলাকায় অনুপ্রবেশকারী একটি মার্কিন ড্রোন গুলি করে নামিয়েছে৷

ইরানের বিদেশ মন্ত্রকের তরফে এই কথা স্বীকার করে নেওয়া হয়৷ তারপরেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কড়া হুঁশিয়ারি দিলেন৷ অন্যদিকে ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি জানিয়েছেন কোনও অবস্থাতেই এই দাদাগিরি সহ্য করা হবে না৷