স্টাফ রিপোর্টার, রায়গঞ্জ: গ্রামবাসীদের চাপে পরে পাঁচদিন বাদে বিদ্যালয়ে সরস্বতী পুজোর আয়োজন করল প্রাথমিক বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ৷ ঘটনাটি উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জ ব্লকের খলশি অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে৷ এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই বিতর্কের দানা বাধলেও পুজোর আনন্দে উচ্ছ্বসিত স্কুলের পড়ুয়ারা৷কারণ, আজ যে তাদের স্কুলে সরস্বতী পুজো হচ্ছে!

সরস্বতী পুজোর দিনে রাজ্যের প্রতিটি বিদ্যালয়ে বাগদেবীর আরাধনা করে থাকে৷ কিন্তু রায়গঞ্জ ব্লকের খলশি অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কোনও নির্দেশিকা না পাওয়ার অজুহাত তুলে পুজোই করেনি৷ এই ঘটনা নিয়ে এলাকার বাসিন্দা থেকে পড়ুয়াদের অভিভাবকেরা ক্ষোভে ফেটে পরেন৷

আজ স্কুল খুলতেই বিক্ষোভ দেখান তারা ও চাপ দেন আজই বিদ্যালয়ে সরস্বতী পুজোর করতে হবে৷ এরপর একপ্রকার গ্রামের বাসিন্দা আর অভিভাবকদের চাপে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক স্থানীয় পুরোহিতের পরামর্শে আজই সরস্বতী পুজোর আয়োজন করে৷ তবে পাঁচদিন পরে হলেও বিদ্যালয়ে সরস্বতী পুজো হওয়াতে আনন্দে খুদে পড়ুয়ারা৷ রীতিমতো শাড়ি পরে সেজেগুজে বিদ্যালয়ে সরস্বতী পুজোর আনন্দ উপভোগ করছে তারা৷

অভিভাবকেরা জানিয়েছেন, আজ সরস্বতী পুজোর কোনও তিথি নেই৷ এমন পুজো ভালো লাগছে না৷ পুজোর দিনে পুজো না করে ঠিক করেনি বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ৷ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বাসুদেব মণ্ডল বলেন, ‘‘সরস্বতী পুজোর কোনও নির্দেশ ছিল না তাই করিনি৷ তবে আমাদের খুব ভুল হয়ে গিয়েছে পুজোর দিনে সরস্বতী পুজো না করে৷ আজ তাই ভুলের প্রায়শ্চিত্ত করছি৷’’
এদিকে উত্তর দিনাজপুর জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শক এই খবর পাওয়া মাত্রই অবর বিদ্যালয় পরিদর্শক ও অতিরিক্ত বিদ্যালয় পরিদর্শককে রায়গঞ্জ ব্লকের খলশি অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন৷ পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট পেশ করার নির্দেশও দেন তিনি৷

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা