ঢাকা- বেঁচে থাকতে দলের মুখ ছিলেন। বাংলাদেশের একনায়ক স্বৈরশাসক হুসেইন মহ.এরশাদের প্রয়াণের পর তীব্র হয়েছে জাতীয় পার্টির গোষ্ঠী কলহ। একদিকে এরশাদের স্ত্রী রওশন অন্যদিকে দেওর জিএম কাদের। এই বৌদি-দেওরের ক্ষমতা দখলের লড়াইয়ের মাঝে এরশাদ ছাড়াই প্রথম নির্বাচনী অগ্নিপরীক্ষায় জাতীয় পার্টি( জাপা )। ঘটনাস্থল সেই রংপুর।

এরশাদের রাজনৈতিক ঘাঁটি হিসেবে এখনও পরিচিত। বাংলাদেশ জাতীয় নির্বাচনে অন্যত্র জাপা তেমন সুবিধা না করতে পারলেও রংপুরে নিজের শক্তি দেখিয়েছে। ক্ষমতার স্বাদ পেতে এরশাদের ফর্মুলায় আওয়ামী লীগের সঙ্গে হাত মিলিয়ে ভোট লড়ে বিরোধী আসনটি কব্জা করেছে জাপা। এই বিতর্কিত অবস্থান নিয়েই রংপুরে এরশাদ ঘাঁটিতে ভোট লড়াইয়ে ফের তারা। রংপুর-৩ (সদর) আসনের উপনির্বাচন নিয়ে তৈরি হয়েছে আগ্রহ। জাতীয় পার্টির গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব এমনই যে দলের দুই প্রার্থী নিয়ে অস্বস্তি প্রবল।

ভোটের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে এরশাদ পরিবারের সদস্য প্রতিদ্বন্দ্বী দুই প্রার্থী নিয়ে বাড়ছে বিতর্ক। এদের অন্যতম এরশাদের পুত্র সাদ ও ভাইপো মকবুল শাহরিয়ার আসিফ। নির্বাচনী লড়াইয়ে রয়েছেন বিএনপি প্রার্থী রিটা রহমান। আওয়ামী লীগের একটি বড় অংশ জড়িয়েছে এরশাদ পরিবারের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে।

তবে রংপুরের নির্বাচনী লড়াইয়ের প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে মূলত এরশাদ পরিবারের দুই সদস্যের মধ্যে। লাঙল চিহ্ন হল প্রয়াত এরশাদের দলীয় প্রতীক। বহু রাজনৈতিক টালমাটাল পরিস্থিতিতে রংপুর বারবার লাঙল ও এরশাদে আস্থা রেখেছে। সেটাই স্বস্তিতে রাখছে অধিনায়কহীন দলকে।