নয়াদিল্লি: ডোকালামের সমস্যার পর এবার ভূটানের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতির দিকে জোর দিল ভারত৷ প্রতিবেশি রাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতির জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ভূটান সফরে যেতে পারেন বলেও শোনা যাচ্ছে৷

গত বছর ডোকালামে ৭৩ দিন মুখোমুখি অবস্থান করেছিল ভারতীয় সেনা ও চিন সেনা৷ এরপর চিন তাদের সেনা সরিয়ে নেয়৷ পরিবর্তে ভারতও অবস্থান থেকে সরে আসে৷

আরও পড়ুন: ২৬/১১-র মতো হামলার সঙ্গে যুঝতে পাঁচতারায় প্রস্তুতি

কূটনৈতিকমহল মনে করছে, এর ফলে ভারত ও ভূটানের পারস্পরিক সম্পর্কে প্রভাব পড়তে পারে৷ তাই আর ঝুঁকি না নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ভূটানের সঙ্গে সম্পর্ক ঝালিয়ে নেওয়ার দিকে জোর দিয়েছেন৷

সরকারি সূত্রে খবর, দুই দেশের মধ্যে সুসম্পর্কের কারণে গত ৫০ বছর ধরে সুবিধা হয়েছে৷ সেই সম্পর্ক ফের ঝালিয়ে নেওয়া দরকার৷ তাই এবছরের কোনও এক সময় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ভূটান সফরে যাবেন৷ কূটনীতিবিদদের সঙ্গে কথা বলার পর দিনক্ষণ ঠিক করা হবে৷ সফরের পরিকল্পনাও তাঁদের সঙ্গে কথা বলেই প্রধানমন্ত্রী ঠিক করবেন বলে জানানো হয়েছে৷

আরও পড়ুন: ভূস্বর্গে কেঁপে উঠল ভূমিকম্পে

১৯৬৮ সালের ৮ জানুয়ারি থেকে ভারত ও ভূটানের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক তৈরি হয়েছে৷ চিনের সঙ্গে ভূটানের কোনও কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই৷ ২০১৪ সালের মে মাসে নরেন্দ্র মোদী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর ভূটান অন্যতম প্রথম দেশ যারা তাঁকে শুভেচ্ছা জানিয়েছিল৷ ভূটানে প্রথম যখন তিনি পরিদর্শনে যান, তখন দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরও ঘনীভূত হয়৷

সরকারি সূত্র থেকে আরও জানা গিয়েছে, ভূটানের সঙ্গে ভারত একটি জলবিদ্যুৎ প্রজেক্ট তৈরি করার পরিকল্পনা চলছে৷ এর মধ্যে একটি প্রজেক্ট এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে৷ মোদীর মাংদেচু জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র উদ্বোধনের সময় এই প্রজেক্টের কথা প্রকাশ করা হবে বলে শোনা যাচ্ছে৷

আরও পড়ুন: “ধন্যবাদ সুপ্রিম কোর্ট”, বলল ১০ বছরের ছেলে