স্টাফ রিপোর্টার, মেদিনীপুর: তৃণমূলের সেলেব সাংসদ একাধিকবার মোদী-সরকারের প্রশংসা করেছেন৷ নোটবাতিলের সময় সারাদেশ মমতা ব্যন্দ্যোপাধ্যায় সহ বিজেপি বিরোধী শিবির মোদী-সরকারের সমালোচনায় ডুবে ছিলেন ঠিক তখনই উল্টোপথে হেঁটেছিলেন তৃণমূলের সেলেব সাংসদ দীপক অধিকারী৷

সম্প্রতি ঘাটালে নিজের নির্বাচনক্ষেত্রে গিয়ে সংবাদমাধ্যমকে তিনি বলেন বিজেপি পাকিস্তানের কোনও সন্ত্রাসবাদী দল নয়৷ ভারতেরই একটি রাজনৈতিক দল যারা পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতায় আসতে চায়৷ ওদের নিয়ে কথা বলা যাবে না এমন নয়৷

নোটবন্দীর সময় দেব সংবাদমাধ্যমেকে স্পস্ট জানিয়েছিলেন,‘‘এটি একটি ভালো পদক্ষেপ এর ফলে সাধারণ মানুষের সাময়িক কষ্ট হলেও ভবিষ্যৎ-এ উপকার হবে৷ এতে কালো টাকার বাড়বাড়ন্ত রোধ করা যাবে৷’’ বিজেপিকে ‘একটি দাঙ্গাবাজ দল’ হিসেবেই বাংলার মানুষের কাছে তুলে ধরতে চেয়েছে তৃণমূল নেতৃত্ব৷

লোকসভার ভোটের ঠিক মুখে বাংলার রাজনীতিতে দুটি রাজনৈতিক দল ব্যাক্তি আক্রমণে নামতেও পিছপা হয় না সেখানে সুস্থ রাজনাতির উদাহরণ রাখলেন দেব৷ এমনটাই মত রাজনৈতিক মহলের৷ তবে পাশাপাশি তাঁরা এই নিয়েও চিন্তিত এর ফলে দেবের উপর তৃণমূলের কী কোপ নেমে আসতে চলেছে৷

বুধবার ঘাটালে বিজয় সম্মিলনীর অনুষ্ঠানে যোগ দেন অভিনেতা সাংসদ দেব। অনুষ্ঠানে যোদ দিয়ে তিনি জানান সিনেমার কাজে ব্যস্ত থাকার জন্য হয়ত সবসময় ঘাটালে আসতে পারেন না কিন্তু তিনি মানুষের সঙ্গে আছেন। এরপরই একটি বৈদ্যুতিন চ্যালেনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে দেব বলেন, ”আমি চাই দেশের ভাল হোক। রাজ্যের ভাল হোক। সবাই শত্রু নয়। যে দল মানুষের ভালোবাসা ও সমর্থণ পাবে তারাই রাজ্য চালাবে।’’

এরপরই দেশ ও রাজ্যের নেতিবাচক রাজনীতি থেকে রাজনৈতিক দলগুলিকে সরে আসার পরামর্শ দেন দেব৷ ঘাটালের সাংসদ বলেন, ‘‘এখন রাজনীতির যে অবস্থায় রয়েছে তার পরিবর্তন হওয়া উচিৎ। সাধারণ মানুষ শান্তি চান। কাদা ছোড়াছুড়ি নয়। প্রতিটি রাজনৈতিক দলকেই এসবের ঊর্ধ্বে উঠতে হবে। বিদ্বেষের রাজনীতি ৭০ বছর ধরে চলছে। এবার ইতিবাচক রাজনীতি চাই৷”

২০১৪ সালে তৃণমূলের টিকিটে প্রথমবার ঘাটল থেকে নির্বাচন লড়েন দীপক অধিকার৷ সেই সময় ঘাটালে দেবের প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন সিপিএম নেতা সন্তোষ রানা৷ ঘাটালে নির্বাচনী প্রচার করার সময় রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বির আমন্ত্রণে তাঁর বাড়িতে গিয়ে চা খেয়ে এসেছিলেন দেব৷ এককথায় যা ভারতীয় রাজনীতির জন্য নজির সৃষ্টিকারী৷ এমনটাই মত রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের৷

2 COMMENTS

Comments are closed.