বার্সেলোনা: মোক্ষম সময়ে এসে যেন ‘ব্যাড-প্যাচ’ চেপে ধরেছে বার্সেলোনাকে। লকডাউন পরবর্তী চ্যাম্পিয়নশিপের শেষ ল্যাপে যেখানে আরও তেড়েফুঁড়ে ওঠার কথা, সেখানেই বারংবার হোঁচট খেয়ে চলেছে কাতালান ক্লাবটি। লকডাউন পরবর্তী প্রথম পাঁচ ম্যাচের দু’টিতে ড্র করে রিয়াল মাদ্রিদকে এককভাবে শীর্ষে ওঠার সুযোগ করে দিয়েছিল বার্সেলোনা। বুধবার ঘরের মাঠে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের বিরুদ্ধে ড্র করে খেতাব থেকে আর এককদম পিছু হটল তাঁরা।

পুরনো দলের বিরুদ্ধে আতোয়াঁ গ্রিজম্যানকে পরিবর্ত হিসেবে ৯০ মিনিটে নামালেন সেতিয়েন। যা দেখে অবাক বিপক্ষ কোচ দিয়েগো সিমোনে। ম্যাচে তিনটি গোল পেনাল্টিতে, একটি আত্মঘাতী। নু-ক্যাম্পে বার্সেলোনা-অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ ম্যাচ শেষ হল ২-২ গোলে। ম্যাচের পর সার্জিও বুসকেটস নির্দ্বিধায় স্বীকার করে নিলেন, বার্সার খেতাব ধরে রাখা অনেক কঠিন হয়ে গেল। তবে এতোকিছুর মধ্যেও অবশেষে ৭০০ গোলের মাইলফলক স্পর্শ করলেন লিওনেল মেসি। গত তিন ম্যাচে গোল আসেনি তাঁর পা থেকে। অপেক্ষা দীর্ঘায়িত হচ্ছিল।

অবশেষে এদিন আর্জেন্তাইন মহাতারকা সেই মাইলস্টোন ছুঁলেন ৫০ মিনিটে। ম্যাচ তখন ১-১। ৪৮ মিনিটে বক্সের মধ্যে আনসু ফাতিকে অবৈধ চ্যালেঞ্জ করেন বিপক্ষের এক ডিফেন্ডার। পেনাল্টি পায় বার্সেলোনা। স্পটকিক থেকে পানেনকা শটে ম্যাচে দলকে দ্বিতীয়বারের জন্য এগিয়ে দেন মেসি। একইসঙ্গে কেরিয়ারে ৭০০ গোলের নজির সম্পূর্ণ হয় তাঁর। গোলের পর ক্যামেরায় আঙুল দেখিয়ে অনুরাগীদের উদ্দেশ্যে বিশেষ বার্তা দেন আর্জেন্তাইন। এই ছবিটাই এদিনের শিরোনাম হতে পারত, কিন্তু হল না। ৬২ মিনিটে বার্সেলোনা রক্ষণের ভুলে ম্যাচে দ্বিতীয়বারের জন্য পেনাল্টি পায় অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ।

ম্যাচে নিজের এবং দলের হয়ে দ্বিতীয় গোল করে বার্সেলোনার তিন পয়েন্টের পথে কাঁটা হয়ে দাঁড়ান সাউল নিগুয়েজ। এর আগে প্রথমার্ধে ১১ মিনিটে মেসির কর্নার থেকে আত্মঘাতী গোলে বার্সাকে এগিয়ে দিয়েছিলেন দিয়েগো কোস্তা। পালটা ১৯ মিনিটে ম্যাচের প্রথম পেনাল্টি আদায় করে নেয় অ্যাটলেটিকো। গোল করে দলকে সমতায় ফেরান নিগুয়েজ।

ড্র করে রিয়াল মাদ্রিদকে টপকে যাওয়া তো দূর, ছোঁয়াও হল না বার্সার। এক ম্যাচ বেশি খেলে (৩৩) তাঁদের সংগ্রহে ৭০ পয়েন্ট। অর্থাৎ, জিদানের দল এক ম্যাচ কম খেলে এক পয়েন্টে এগিয়ে। বৃহস্পতিবার গেটাফেকে হারাতে পারলে পাঁচ ম্যাচ বাকি থাকতে বার্সেলোনাকে পরিষ্কার ৪ পয়েন্ট পিছনে ফেলে দেবে লস ব্ল্যাঙ্কোসরা।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ