নয়াদিল্লি: চাইলে নাম পাঠাতে পারেন৷ তবে সেটা বিবেচিত হবে বিশেষজ্ঞদের গোল টেবিল বৈঠকে৷ তারপর সবকিছু খতিয়ে দেখে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে ভারত মহাসাগর সংলগ্ন দেশগুলির আবহাওয়া ভিত্তিক আঞ্চলিক কমিটি৷ আপাতত পরবর্তী ঝড়ের দুটি নাম পবন ও আমফান৷ তালিকা বলেছে এই দুটি নামের পরেই শেষ হচ্ছে তালিকা৷

কিন্তু ঝড় তো আসতেই থাকবে৷ তখন তার নাম কী হবে ? সেটা নিয়েই মাথাগরম আবহাওয়া বিশেষজ্ঞদের৷ বুলবুল নামকরণ করেছে পাকিস্তান৷ আর আসতে চলা ঘূর্ণিঝড় পবনের নাম দিয়েছে শ্রীলঙ্কা৷ আমফানের হকদার থাইল্যান্ড৷

পূর্ববর্তী সামুদ্রিক ঝড়গুলির মধ্যে পুরীতে আছড়ে পড়া ফণীর তাণ্ডব লক্ষ্য করা গিয়েছে ওডিশা উপকূলে৷ North Indian Ocean cyclone season এর হিসেব বলছে, ফণীর নামকরণ করেছিল বাংলাদেশ৷ সিডার ( ওমান), নার্গিস (পাকিস্তান), বিজলি ( ভারত), আয়লা (মালদ্বীপ) এছাড়াও অন্যান্য ঝড়ের নামও ব্যবহার হয়ে গিয়েছে৷ নিয়মানুসারে এই নামগুলি আর দ্বিতীয়বার আর ব্যবহার করা যাবে না৷

আপাতত বুলবুলের আতঙ্ক নিয়েই ভারত ও বাংলাদেশের উপকূলবর্তী এলাকাবাসী কাঁপছেন৷ উপগ্রহ চিত্র বলছে বঙ্গোপসাগরের বুকে তৈরি হওয়া এই ঝড়টির গতিপথ নিয়েই চিন্তিত বিশেষজ্ঞরা৷ হয় বাংলাদেশের চট্টগ্রাম সংলগ্ন উপকূলে তছনছ করবে নাহলে ওডিশা-পশ্চিমবঙ্গের উপকূলে দাপট দেখাবে৷ প্রবল গতি নিয়ে আছড়ে পড়বে বুলবুল৷

ঝড়ের এই নামকরণ নিয়ে বিস্তর গবেষণা চলে৷ ২০০৪ সাল থেকে শুরু হয় পৃথক নাম দেওয়ার পালা৷ তার আগে স্থানভিত্তিক নামেই সামুদ্রিক ঝড়গুলি পরিচিত হত৷