চণ্ডীগড়: ৩৮ দিন পলাতক থাকার পর গতকাল গ্রেফতার হয় ধর্ষণে সাজাপ্রাপ্ত গডম্যান রাম রহিমের পালিত কন্যা হানিপ্রীত ইনসান৷ গ্রেফতারের পরেই বুকে ব্যাথা অনুভব করেন তিনি৷ নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে৷ মেডিক্যাল চেক আপের পর তাকে ফের নিয়ে আসা হয় পুলিশ স্টেশনে৷ সেখানেই চলে জেরা পর্ব৷ পুলিশ সূত্রে খবর রাত তিনটে অবধি চলে জেরা৷ আজ তাকে পঞ্চকুলা আদালতে পেশ করা হবে৷

গত ২৫শে অগষ্ট গুরমিত রাম রহিমের সাজা ঘোষণার পর জ্বলে ওঠে পাঞ্জাব ও হরিয়ানা৷ বাবার অনুগামীদের নজিরবিহীন তাণ্ডবের সাক্ষী থাকে গোটা দেশ৷ হিংসাত্মক ঘটনার বলি হন ৩৮ জন৷ জখম হয় শতাধিক৷ অভিযোগ ওঠে হানিপ্রীতের উসকানিতেই অনুগামীরা সেদিন রাজ্য জুড়ে হিংসা ছড়ায়৷ সেই হিংসার আঁচ এসে পড়ে পড়শী রাজ্যগুলিতেও৷ হানিপ্রীতরে বিরুদ্ধে অভিযোগ, আদালত থেকে জেলে যাওয়ার পথে ডেরা সচ্চা সৌদা প্রধান গুরমিত রাম রহিমকে নিয়ে পালানোর ছক কষেছিলেন তিনি। তার বিরুদ্ধে দেশদ্রোহের অভিযোগ দায়ের করেছে পুলিশ৷

পঞ্চকুলার পুলিশ কমিশনার এবং ইনস্পেক্টর জেনারেল (আইজি) ছাড়াও সিবিআইয়ের বিশেষ তদন্তকারী দল (সিট) হানিপ্রীতকে জেরা করেছে। পুলিশ সূত্রে খবর, বাবার জেল যাত্রার পর থেকে এই ৩৮ দিন তিনি কোথায় ছিলেন তা জিজ্ঞাসা করা হয়৷ জেরা চলাকালীন সেদিনের হিংসাত্মক ঘটনায় তার ভুমিকার কথাও উঠে আসে৷ টানা চার ঘন্টা চলে জেরা পর্ব৷ জেরার গোটা পর্বটাই ক্যামেরাবন্দি করা হয়েছে৷

বুধবার হানিপ্রীতকে আদালতে তোলা হবে৷ ইতিমধ্যেই তার বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ‘পাপা কি পরী’৷ এদিকে পাঞ্জাব পুলিশ কমিশনার এ কে চাওলা জানিয়েছেন, তারা হানিপ্রীতের সর্বোচ্চ দিন পর্যন্ত পুলিশি হেফাজতে রাখার আবেদন জানাবেন৷