কলকাতা: প্রধানমন্ত্রীর চেয়ারে বসার পরই নরেন্দ্র মোদী কার্যত ‘নির্বাসনে’ পাঠিয়ে দিয়েছিলেন লালকৃষ্ণ আদবাণীকে৷ সদস্য করে দিয়েছিলেন দলের ‘মার্গদর্শক’ মণ্ডলীর৷ কিন্তু দলের লৌহপুরুষকে গুরুত্বহীন করে দেওয়ায় বারবার অভিযুক্ত হয়েছেন বিজেপির পোস্টার-বয়৷

এবার সেই ‘গুরুত্বহীন’ আদবাণীর সামনেই ‘নতমস্তকে’ দেখা গেল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে৷ সেই ছবি আবার নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে পোস্টও করেছেন তিনি৷

আরও পড়ুন: বিরাট আইডিয়া বাউন্ডারিতে পাঠালেন ‘হিটম্যান’

সেই ছবি সামনে আসার পর জোর চর্চা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহল শুরু করে নেটিজেনদের মধ্যে৷ অবশেষে কেন তিনি আদবাণীর সামনে ‘নতমস্তক’ হলেন, সেই প্রশ্নের চুলচেরা বিশ্লেষণ শুরু হয়েছে৷

বিজেপির একটি অংশের বক্তব্য, বৃহস্পতিবার লালকৃষ্ণ আদবাণীর জন্মদিন৷ সেই কারণেই নরেন্দ্র মোদী তাঁর বাসভবনে হাজির হয়েছিলেন৷ তাঁকে ফুল দিয়ে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান তিনি৷ এর পিছনে আর কোনও কারণ নেই৷ দলের অন্যতম শীর্ষনেতাকে শ্রদ্ধা জানানো হবে, সেটাই তো স্বাভাবিক৷

আরও পড়ুন: ৫০০ কোটির জিনিস ফেরৎ! দিওয়ালিতে কীভাবে ক্ষতি হল Flipkart, Amazon-এর?

কিন্তু বিরোধীরা কিন্তু এই ঘটনাকে কটাক্ষ করতে ছাড়ছেন না৷ একাধিক বিরোধী নেতার বক্তব্য, দু’য়ারে নির্বাচন৷ কয়েকমাস পেরলেই লোকসভার লড়াইয়ে নামতে হবে নরেন্দ্র মোদীকে৷ পাঁচ বছর আগে আচ্ছে দিনের স্বপ্ন দেখিয়ে ভারতবাসীর মন জয় করেছিলেন তিনি৷ এবার লড়তে হবে নিজের পারফরম্যান্সের ভিত্তি করে৷

আর সেই পারফরম্যন্স খুবই খারাপ৷ ভোটের বৈতরণী পার করতে এবার বিজেপির প্রবীণ শীর্ষ নেতারা মোদীর ভরসা৷ আর তাই লোক দেখাতে মোদী ‘নতমস্তকে’ দাঁড়ালেন আদবাণীর সামনে৷

আরও পড়ুন: বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিমানসেবিকার সঙ্গে যা হল তা কল্পনার বাইরে

বিরোধীরা নিজেদের যুক্তির স্বপক্ষে একাধিক ছবির উদাহরণ তুলে ধরছেন৷ তাদের বক্তব্য, গুগলে ‘মোদী অন আদবাণী বার্থডে’ লিখে সার্চ করলে একাধিক ছবি পাওয়া যায়৷ যেখানে জন্মদিনে আদবাণীর বাড়িতে গিয়েছেন মোদী৷ সেখানে তাঁকে ফুল দিয়ে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন৷ তবে কোথাও তাঁকে ‘নতমস্তকে’ দেখা যায়নি৷

যদিও বিজেপি একাংশের বক্তব্য, মোদী-আদবাণীর দূরত্বের বিষয়টি বিরোধীদের সাজানো গল্প৷ দুই নেতার মধ্যে কোনওদিন কোনও দূরত্ব ছিল না৷ একাধিক অনুষ্ঠানে দু’জনকে পাশাপাশি দেখা গিয়েছে৷ মঞ্চেও মোদীকে আদবাণীর পায়ে হাত দিয়ে প্রনাম করতে দেখা গিয়েছে৷ ফলে বিরোধীদের অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছে বিজেপি৷

আরও পড়ুন: মুকুলের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের