স্টাফ রিপোর্টার, তমলুক: ৩১ মে বিশ্ব তামাক বিরোধী দিবস৷ তামাক ব্যবহারের ফলে মানুষের শরীরে কি কি ক্ষতি হয় তার জন্য সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা স্বাস্থ্য দফতরের উদ্যোগে একটি পদযাত্রার আয়োজন করা হয়৷

জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকের অফিস থেকে পদযাত্রা বের হয়ে তমলুক শহর পরিক্রমা করে তমলুক জেলা হাসপাতালে শেষ হয়। সাধারণ মানুষকে সচেতন করা তামাক সেবনের ফলে যেমন শরীরের ক্ষতি হয় তার সঙ্গে সঙ্গে সামাজিক এবং অর্থনৈতিক অবক্ষয় হয়।

সচেতন করার মূল উদ্দেশ্য হল তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার বর্জন করা। দ্বিতীয়ত তামাক ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করা। যেমন পাবলিক প্লেসে স্কুল কলেজের সামনে তামাকজাত দ্রব্য বিক্রি করা যাবে না। পূর্ব মেদিনীপুর জেলা স্বাস্থ্য দফতর পদযাত্রা শেষে একটি আলোচনা সভার আয়োজন করে জেলা হাসপাতালের সভাকক্ষে৷

আইন করে তামাকজাত দ্রব্য তৈরি করা বা বন্ধ করে দিলে এই মুহূর্তে সমস্যায় পড়বে তামাকজাত দ্রব্য তৈরির সঙ্গে যুক্ত প্রায় ৪০ লক্ষ মানুষ। তাছাড়া বছরে প্রায় ৩২ হাজার কোটি টাকা লোকসান হবে সরকারের। তাই সরকার একেবারে বন্ধ না করলেও ভবিষ্যতে ধীরে ধীরে তামাকজাত দ্রব্য বন্ধ হবেই এমনটাই আশা করছেন পূর্ব মেদিনীপুর জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক৷

আলোচনায় অংশ নেন জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ নিতাই চন্দ্র মণ্ডল, জেলা আইনি পরিষেবার সম্পাদক বিচারক সুমন ঘোষ সহ স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকরা। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য দফতরের কর্মী ও স্কুল কলেজের ছাত্র ছাত্রীরা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।