স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্তর কঠোর শাস্তি ও এলাকায় মহিলাদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার দাবিতে বুধবার উত্তর দিনাজপুরের গঙ্গারামপুর বিডিও অফিস ও থানায় বিক্ষোভ দেখালেন কয়েক হাজার আদিবাসী পুরুষ ও মহিলা৷পরে গ্রামবাসীদের তরফে এক প্রতিনিধি দল বিডিও এবং থানার আইসির কাছে স্মারকলিপি জমা দেন৷ প্রশাসনের তরফে দাবি পূরণের আশ্বাস পাওয়ার পরই ঘেরাও ওঠে৷

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ১২ডিসেম্বর হরিরামপুর থানা এলাকার বোরা গ্রামের এক আদিবাসী ছাত্রীকে ফাঁকা রাস্তায় একা পেয়ে স্থানীয় এক ব্যক্তি ধর্ষণ করে। এই ঘটনায় আদিবাসীমহলে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। জেলার বিভিন্ন এলাকার আদিবাসীপাড়ায় ছড়িয়ে পড়ে উত্তেজনা। পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৬, ৫১১, ৩০৭ ও পকসো ৮ ধারায় মামলা রুজু করে৷

ঘটনার প্রতিবাদে ও এলাকার মহিলাদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে বুধবার গঙ্গারামপুর মহকুমা আদিবাসী সমন্বয় কমিটির ডাকে স্থানীয় হাইস্কুল মাঠে কয়েক হাজার মানুষ জড় হন। সেখান থেকে মিছিল করে ব্লক অফিস ও থানার সামনে গিয়ে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। বিক্ষোভকে ঘিরে থানা ও ব্লক অফিস চত্বরে তীব্র উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে এলাকায় নিয়ে আসা হয় জলকামান৷ এছাড়াও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ওয়াংডেন ভুটিয়ার নেতৃত্বে বিশাল পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়।

সংগঠনের নেতা দুর্গা সোরেন বলেন,‘‘দক্ষিণ দিনাজপুরে আদিবাসী মহিলাদের কোনও নিরাপত্তা নেই। মাঝে মাঝেই আদিবাসী মহিলারা অত্যাচারের স্বীকার হচ্ছেন৷তাই মহিলাদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছি। স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় দ্রুত চার্জশিট জমা দিয়ে অভিযুক্তকে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছি৷’’

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।