মুম্বই: সুশান্ত সিং রাজপুতের মামলার মাদকযোগ বড় আকার নিয়েছে। সুশান্তের ঘটনা নিয়ে প্রথম থেকেই সরব কঙ্গনা রানাউত। কঙ্গনার দাবি বলিউডের ৯৯ শতাংশ মানুষ মাদক নেন। রণবীর কাপুর থেকে ভিকি কৌশলদের আক্রমণ করেছেন কঙ্গনা। অভিনেত্রীর অভিযোগ এরা প্রত্যেকেই নাকি মাদকাশক্ত।

কিন্তু এক সময় কঙ্গনার বিরুদ্ধেই কোকেন নেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল। এই অভিযোগ করেছিলেন কঙ্গনার প্রাক্তন প্রেমিক অধ্যয়ন সুমন। সুশান্তের ঘটনায় মাদক যোগ উঠে আসার পরে অধ্যয়ন সুমনের সেই পুরনো ভিডিও ইন্টারনেটে ভাইরাল হয়েছে। এই পুরনো সাক্ষাৎকারে অধ্যয়ন বলেছিলেন যে কঙ্গনা মাদক নেন। কঙ্গনার কোনো এক বছরের জন্মদিনের পার্টিতে কোকেন নিতে রাজি হননি অধ্যয়ন। আর তাই তখনই তাঁর সঙ্গে বচসা বেঁধেছিলো কঙ্গনার। এই ঘটনার কথা একটি সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন অধ্যয়ন সুমন। সেই সময় ইন্টারনেটে এই ঘটনা ছড়িয়ে পড়ে।

সম্প্রতি এক সংবাদমাধ্যম এই বিষয়ে অধ্যয়ন সুমনকে জিজ্ঞাসা করেন। তখন অধ্যয়ন বলেন, সেই সময় তিনি আবেগ তাড়িত হয়ে অনেক কথাই বলেছেন। উল্লেখ্য ঘটনাটি ঘটেছিল ২০০৮ সালে এবং অধ্যায়ন বিষয়টি সম্পর্কে সংবাদমাধ্যমের কাছে বলেছিলেন ২০১৬ সালে।

অধ্যয়ন এও বলেন, তিনি যা বলার তখনই বলে দিয়েছেন। নতুন করে আর এই বিষয়ে কোন কথা বলতে চান না। তাঁর মতে কঙ্গনার নিজস্ব একটা লড়াই রয়েছে এবং তিনিও আলাদা করে নিজের মত লড়ছেন। দুজনের যাত্রাপথ সম্পূর্ণ ভিন্ন।

প্রসঙ্গত সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পরে বলিউডের বিরুদ্ধে একের পর এক তোপ দাগেন কঙ্গনা রানাউত। একসময় অধ্যয়ন সুমনের সঙ্গে সম্পর্ক ভাঙ্গার পরে সংবাদমাধ্যমের সামনেই বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে ছিলেন কঙ্গনা। কিন্তু সুশান্তের মৃত্যুর পর বলিউডের বিরুদ্ধে সরব হন অধ্যায়নের বাবা শেখর সুমন। তাই দুজনের পথ আলাদা হলেও, উদ্দেশ্য একই বলা যেতে পারে। আর সেই কারণেই অধ্যয়ন সুমন এই বিষয়টি নিয়ে আর কথা এগোতে চান না বলে নেটিজেনদের মত।

উল্লেখ্য সেই সাক্ষাৎকার এর উপর ভিত্তি করেই নতুন করে মাদক যোগে জড়িয়েছেন কঙ্গন নিজেও। তিনি নিজেই সরব হয়েছিলেন যাতে প্রত্যেকের রক্ত পরীক্ষা করে দেখা হয়। কিন্তু এবার বুমেরাং হয়ে তা ফিরে এসেছে তার কাছেই।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।