বহরমপুর: জমে উঠেছে লোকসভার ভোট যুদ্ধ। এরই মধ্যে চলছে একে অপরকে নিয়ে নানা মন্তব্য। মাঝেমধ্যে আক্রমণ শানাতে গিয়ে অশালীনতার সীমা পর্যন্ত ছাড়াচ্ছেন ডান-বাম সমস্ত রাজনৈতিকদলের প্রার্থীরা। এবার তা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করলেন অধীর চৌধুরী।

শনিবার দুপুরে বহরমপুরে জেলা কংগ্রেস ভবনে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হন অধীর চৌধুরী। তিনি বলেন, এই রাজ্যে অনশন করার অধিকার এখন কারও নেই। মাদ্রাসা শিক্ষকেরা যে অনশন করছেন তা চলতে থাকলে তো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ২৬ দিনের রেকর্ড অক্ষুত থাকবে না।তাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চাকরি প্রার্থী অনশনরতদের কাছে নাটক করতে গিয়েছিলেন। সংখ্যালঘু ইস্যু নিয়েও মুখ্যমন্ত্রীকে তোপ দাগেন মুর্শিদাবাদের রবিনহুড।

অধীরের প্রশ্ন, আমাদের মুখ্যমন্ত্রী মুসলিম দরদি প্রমান করতে একদিন ইমাম ভাতা দেওয়া ও মাদ্রাসা তৈরির কথা বলেছিলেন। কিন্তু এখন কটা মাদ্রাসা হয়েছে । এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুসলিম দরদির পাশাপাশি হিন্দু দরদী হওয়ায় চেষ্টা করছে। তিনি প্রমাণ করতে চাইছেন মোদী, যোগীর থেকেও তিনিই বড় হিন্দু। মুর্শিদাবাদের এই বেতাজ বাদসার দাবি, এক সময় মুসলমানদের মসিয়া হতে চেয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। আর আজ মাদ্রাসা শিক্ষকদের উপর হামলা চালায় তাঁর পুলিশ, এমনটাই অভিযোগ অধীর চৌধুরীর।

সবাই যানে নামাজের সময় যুদ্ধ পর্যন্ত হয় না কিন্তু আজ এই বাংলার রাজপথে নামাজের সময় চাকরি প্রার্থী অনশনরতদের উপর হামলা চালান হল বলে অভিযোগ বিদায়ী এই সাংসদের।

পাশাপাশি এদিন অধীর চৌধুরী আরও বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যদি ভাবেন কুতসা লাগিয়ে অধীর চৌধুরীকে পরাজিত করবেন তবে আমিও আপনার জীবনের কুতসা আমি ছড়িয়ে দেবো। আমি জানি আপনার জীবনের নানা কুতসা আছে। তাঁর উপর অনেক বইও প্রকাশিত হয়েছে। সেই বই হয়ত সবাই পরেনি কিন্তু আমি পড়েছি। তাই আমার নামে কুতসা রটিয়ে আপনি নিজের কুৎসা ছড়াতে দেবেন না।