তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়াঃ পোষ্ট অফিসে আধার কার্ড তৈরির ক্ষেত্রে বড়সড়’দূর্ণীতি’র অভিযোগ। আর সেই অভিযোগ তুলে জোরদার আন্দোলনে নামল শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। বৃহস্পতিবার বাঁকুড়ার গঙ্গাজলঘাটি পোষ্ট অফিসে এই ঘটনার প্রতাবাদ জানিয়ে কয়েকশো দলীয় কর্মী সমর্থককে সঙ্গে নিয়ে গণডেপুটেশনে অংশ নিলেন ব্লক তৃণমূল নেতৃত্ব। আন্দোলনকারীদের অভিযোগ, নতুন আধার কার্ড তৈরির ক্ষেত্রে এজেন্টদের মাধ্যমে পাঁচশো থেকে ছ’শো টাকা পর্যন্ত নেওয়া হচ্ছে। অবিলম্বে এই বেআইনী কাজ বন্ধের দাবী তারা জানিয়েছেন। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে।

আন্দোলনে অংশ নিয়ে তৃণমূল নেতা হৃদয় মাধব দুবে বলেন, কয়েক দিন ধরে আধার কার্ড তৈরির জন্য লাইনে দাঁড়িয়েও অনেকের আধার কার্ড হচ্ছে না। অথচ পাঁচশো থেকে আটশো টাকার বিনিময়ে কারও কারও ঘন্টা খানেকের মধ্যে আধার কার্ড তৈরি হচ্ছে। বিষয়টি আমাদের কানে পৌঁছতেই আমরা এই ঘটনার প্রতিবাদে নেমেছি। বিষয়টি নিয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত পোষ্ট মাস্টার খোঁজ নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন ও সঠিক নিয়ণানুষারে আধার কার্ড তৈরি হবে বলে তিনি দাবি করেন।

এবিষয়ে সংশ্লিষ্ট পোষ্ট অফিসের পোষ্ট মাস্টার শেখর কর্মকার টাকা নিয়ে আধার কার্ড তৈরির অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, এই ধরণের কোন অভিযোগ নেই। যদি এই ধরণের অভিযোগ আসতো তাহলে তিনি সঙ্গে সঙ্গেই উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানাতেন বলে জানান।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.