নয়াদিল্লি: গুজরাতি হিরে ব্যবসায়ী যতীন মেহতা ক্রমশ হয়ে উঠেছেন একেবারে বিজয় মালিয়ার উত্তরসূরি৷ কারণ অনদায়ী ঋণ না মিটিয়ে তিনিও ভিন দেশের পালিয়েছেন ৷ একেবারে ‘হিরের টুকরো’ এই ব্যবসায়ী আবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ঘনিষ্ঠ শিল্পপতি গৌতম আদানির আত্মীয়ও বটে৷ এই যতীনের ছেলে সুরজের খুড়শ্বশুর হলেন গৌতম।

যতীন মেহতার সংস্থার কাছে এ দেশের বিভিন্ন্ ব্যাংকের অনাদায়ী ঋণের অংক প্রায় ৭ হাজার কোটি টাকা।  অথচ এই অবস্থায় তিনি তাঁর ভারতীয় নাগরিকত্ব ছেড়ে সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস নামে ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জের একটি ছোট্ট দেশের নাগরিকত্ব নিয়ে ফেলেছেন।  কর ফাঁকির স্বর্গরাজ্য বলে খ্যাত ওই দেশটির সঙ্গে আবার ভারতের কোনও রকম প্রত্যর্পণ চুক্তি নেই।  ফলে সাম্প্রতিক ঘটনাবলীতে যতীন হয়ে উঠছেন দ্বিতীয় বিজয় মালিয়া৷
ঋণের টাকা ফাঁকির দেওয়ার পাশাপাশি এই ব্যক্তি তথা তাঁর সংস্থার বিরুদ্ধে পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক, বিজয়া ব্যাংক ও সেন্ট্রাল ব্যাংকের অভিযোগ রয়েছে মোট ১৫৩০ কোটি টাকা প্রতারণাও৷ ফলে তাঁর মালিকানাধীন সংস্থার বিরুদ্ধে সিবিআই আধ ডজন মামলা ঠুকে দিয়েছে।  কারণ সূত্রের খবর তাঁর দুই সংস্থা ‘উইনসাম ডায়মন্ডস’ এবং ‘ফরএভার ডায়মন্ডস’ সংযুক্ত আরব আমিরশাহি থেকে সোনা আমদানি করে গয়না বানিয়ে তা ওই দেশেরই ১৩টি সংস্থাকে রফতানি করত।  এজন্য ব্যাংকের ‘লেটার অব ক্রেডিট’-এর মাধ্যমে সোনা আমদানি করা হত। কিন্তু আরবের সংস্থাগুলির সঙ্গে চুক্তিভঙ্গ করায় ওই তিনটি ব্যাংকে যতীনের হয়ে সমস্ত টাকা শোধ করতে হয়।

আরও পড়ুন: কৃষি ঋণমুকুবের মূল্য জিডিপির ২%: মুখ্য অর্থনীতি উপদেষ্টা

কিন্তু সিবিআই সন্দেহ করছে, আরবের সংস্থাগুলির সঙ্গে আসলে তলায় তলায় যোগসাজশে এটা করেছে যতীন।  তিনি ২০১২-তেই উধাও হয়ে যান। পরে সস্ত্রীক ভারতের নাগরিকত্ব ছেড়ে সেন্ট কিটসের নাগরিকত্ব নেন।  আর প্রতারণার সেই অর্থ তিনি বাহামাতে লগ্নি করেছেন বলেও গোয়েন্দারা জানতে পেরেছেন।

এদিকে এই যতীনকে নিয়ে অবশ্য তোলপাড় হচ্ছে রাজধানী।রাহুল গাঁধী ইতিমধ্যেই প্রশ্ন তুলেছেন, দেশের ৫০ জন শিল্পপতি ব্যাংকের কোটি কোটি টাকা ঋণ শোধ না করলেও মোদী সরকার কোনও ব্যবস্থাই নিচ্ছে না কেন? যতীন একে গুজরাতি তার উপর মোদী ঘনিষ্ঠ আদানির আত্নীয় বলে কথা৷ ফলে এই ইস্যুতে চাপ বেড়েছে মোদী সরকারের৷ সেই চাপ কিছুটা প্রশমিত করতেই যতীনের বিরুদ্ধে সিবিআই নামিয়ে দিয়ে কেন্দ্র এবার নিরপেক্ষতার বার্তা দিতে চাইছে ৷ অন্যদিকে ৯০০০কোটি টাকার বকেয়া ঋণ না মিটিয়ে পালিয়ে যাওয়া শিল্পপতি বিজয় মালিয়াকে দেশে ফেরাতে তৎপরতাও শুরু করেছে কেন্দ্র।