মুম্বই: বিপাকে পড়েছেন জনপ্রিয় টেলি অভিনেত্রী নুপূর অলঙ্কার। এক স্বাক্ষাতকারে তিনি জানিয়েছেন তাঁর অর্থনৈতিক পরিস্থিতি মোটেই ভালো অবস্থায় নেই। অবস্থা এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, সংসার চালানোর জন্য নিজের গয়না বেঁচে দিতে হচ্ছে তাঁকে।

কিন্তু কেমন করে হল এমন দুরাবস্থা। তাঁরও উত্তর দিচ্ছেন অভিনেত্রী। তিনি জানিয়েছেন, সম্প্রতি পাঞ্জাব মহারাষ্ট্র সমবায় ব্যাঙ্কের বিপর্যয়ের ফলেই এই চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে দিন কাটাতে হচ্ছে তাঁকে। ‘আগলে জনম মোহে বিটিয়া হি কিজো’ , ‘ঘর কি লক্ষ্মী বিটিয়া’ র মত শো-এর নায়িকা জানিয়েছেন, তাঁর অন্য ব্যাঙ্কেও টাকা রাখা ছিল। কিন্তু তিনি শেষে তাঁর সমস্ত টাকাই তিনি এই ব্যাঙ্কে জমা রেখেছিলেন।

তিনি জানিয়েছেন, “ঘরে কোনও টাকা সঞ্চিত নেই। আমার গয়না বিক্রি ছাড়া আর কোনও রাস্তাই আমার কাছে খোলা নেই।” এমনকি তিনি এও বলেছেন, তাঁর পরিচিত এক অভিনেতার কাছ থেকে তিনি ৩০০০ টাকা ধারও নেন। অভিনেত্রীর বক্তব্য, কবে যে এই সসস্যার সমাধান হবে সে সম্পর্কে কোনও ধারণা তিনি পাচ্ছেন না। এছাড়া তিনি তাঁর টাকা হারিয়ে ফেলার ভয়ও পাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন।

টাকা ছাড়া কীভাবে দৈনন্দিন জীবন যাপন করবেন সেই প্রশ্নই এখন তাঁর কাছে সবচেয়ে বড় হয়ে উঠেছে । তিনি প্রশ্ন ছুঁড়েছেন, “আমি নিয়ম মেনে ইনকাম ট্যাক্স দিয়ে থাকি, তাহুলে কেন আমাকে এই পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যেতে হবে”।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি পাঞ্জাব মহারাষ্ট্র সমবায় ব্যাঙ্কে ২৫ হাজার কোটি টাকা দুর্নীতির অভিযোগে সমস্ত লেনদেন বন্ধ রাখা হয়েছে। এরফলে ওই সব ব্যাঙ্কে যাদের টাকা রয়েছে তাঁরা পড়েছেন ব্যাপক আতান্তরে। সেপ্টেম্বরে গণেশ চতুর্থীর কিছু আগে থেকেই এই সংকটে পড়েছেন গ্রাহকরা। এমনই গ্রাহকদের মধ্যে একজন হলেন অভিনেত্রী নুপূর অলঙ্কার। তিনিও ওই ব্যাঙ্কে টাকা রেখে পড়েছেন মহাবিপদে।

সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, ওই ব্যাঙ্ক থেকে আপাতত ৬ মাস অন্তর ১০ হাজার টাকা করে তোলা যাবে। পরবর্তী সময়ে এই মাত্রা বাড়িয়ে ২৫,০০০ করা হবে।