কলকাতা- সোশ্যাল মিডিয়া এর আগেও বহু কটাক্ষের মুখে পড়েছেন বাংলাদেশের অভিনেত্রী রাফিয়াত রশিদ মিথিলা। পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়কে বিয়ে করার সময় আক্রমণের শিকার হয়েছিলেন তিনি। তাই সোশ্যাল মিডিয়া ট্রোলিং কেমন তা তাঁর কাছে নতুন কিছু নয়। তাই সেসব কি খুব একটা গুরুত্ব দেন না মিথিলা।

কিন্তু সম্প্রতি এর একটি ছবি ফেসবুকে পোস্ট করে নিন্দুকদের সমালোচনার শিকার হলেন অভিনেত্রী। একেবারে বঙ্গবধূর বেশে এই ছবি শেয়ার করে ট্রোলড হয়েছেন মিথিলা। অন্ধকার ঘর। সেখানে দাঁড়িয়ে আছেন মিথিলা। পরনে একটি গাঢ় রংয়ের শাড়ি। ঘনকালো খোলা চুল তার সৌন্দর্য যেন বাড়িয়ে দিয়েছে।

আর অন্ধকারের মধ্যেই এক চিলতে আলো এসে পড়েছে মিথিলার উপর। ছবির ক্যাপশনে কবি জীবনানন্দ দাশের বিখ্যাত কবিতা বনলতা সেনের শেষ দুটি লাইন ব্যবহার করেছেন সৃজিত ঘরনী- “সব পাখি ঘরে আসে— সব নদী— ফুরায় এ-জীবনের সব লেনদেন;থাকে শুধু অন্ধকার, মুখোমুখি বসিবার বনলতা সেন।”

কিন্তু ব্লাউজ ছাড়া শাড়ি দেখেই চটেছে কট্টরপন্থী নেটিজেনরা। অশ্লীল ভাষায় আক্রমণ করেছেন মিথিলাকে। এই ছবি পোস্ট করার জন্য ধর্ম নিয়েও শুনতে হয়েছে তাঁকে। সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে বিয়ে করছেন এই খবর ঘোষণা করার পরেও একইরকম আক্রমণের মুখে পড়তে হয়েছিল মিথিলাকে।

ফের সেইরকমই আক্রমণের মুখে পড়লেন তিনি। কেউ দাবি করছেন ভারতে গিয়ে নিজের সংস্কৃতিকে ভুলে গিয়েছেন মিথিলা। আবার কারোর দাবি নিজের ধর্মকে হয়তো তিনি ত্যাগ করতে চলেছেন। আবার ব্লাউজহীন শাড়ি পরা দেখে কেউ লিখেছে, পোশাকের অভাব হয়েছে হয়তো অভিনেত্রীর।

 

এমনই নানা রকম ভাবে তাকে আক্রমণ করা হয় এই ছবির কমেন্টে। তবে এই তো প্রথম নয়! আর তাই বরাবরের মতো এবারও নিন্দুকদের কথায় কান দেননি মিথিলা। প্রসঙ্গত, করোনা আবহের জন্য দীর্ঘ সময় আলাদা ছিলেন সৃজিত মুখোপাধ্যায় ও মিথিলা। তবে নিয়মিত তাদের ভিডিও কলিংয়ে যোগাযোগ ছিল।

কিন্তু তবুও পরস্পরের দেখা সঙ্গে দেখা করার জন্য অপেক্ষা করেছিলেন তারা। অবশেষে সেই অপেক্ষার অবসান হয়েছে গত ১৫ অগাস্ট। মেয়েকে নিয়ে মিথিলা সেদিন ভারতে আসেন। দীর্ঘ ৫ মাস পর দেখা হয় নবদম্পতির। এখন তারা একসঙ্গেই রয়েছেন।

স্বামীর সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে বস্ত্র ব্যবসাকে অন্যমাত্রা দিয়েছেন।'প্রশ্ন অনেকে'-এ মুখোমুখি দশভূজা স্বর্ণালী কাঞ্জিলাল I