স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : বাংলা টেলিভিশনের জনপ্রিয় অভিনেতা বিক্রম চট্টোপাধ্যায় বেশ ভালো রকমেরই সোশ্যাল মিডিয়া স্যাভি৷ ট্যুইটার, ইনস্টাগ্রাম, ফেসবুকে প্রায় কিছু কিছু না পোস্ট করতে থাকেন৷ এমনকি ভক্তদের সঙ্গেও ইন্টাব়্যাক্টিভ সেশনে যুক্ত থাকেন তিনি৷

ট্যুইটার ট্রেন্ডের মধ্যে #Ask সেশন কমবেশি সকলেরই জানা৷ এই ধরণের হ্যাশট্যাগ সেশন সেলেব্রিটি কিছু সময়ের জন্য করেন৷ ফ্যানেরা সেই সময় তারকাদের নিজের মনে যা প্রশ্ন আছে সবই করতে পারে৷ আর উত্তর আসবে সরাসরি তারকার থেকেই৷

যদিও একাধিক ভক্তদের দাবি সেলেব্রিটিদের সোশ্যাল মিডিয়া নাকি তাঁদের সোশ্যাল মিডিয়া স্ট্যাটেজিস্ট বা ম্যানেজাররা হ্যান্ডেল করেন৷ তবে উত্তর যাই আসুক না কেন বেশ জেনুইনই লাগে কয়েকজনের৷

পড়ুন: বাগি থ্রিতে টাইগারের বিপরীতে সারা?

এই সেশন মাঝেমাঝেই করেন বিক্রম৷ সেখানে তাঁর এখনকার ধারাবাহিক ‘ফাগুন বউ’ নিয়ে যেমন প্রশ্ন থাকে তেমনই তাঁর ব্যক্তিগত জীবন নিয়েও প্রশ্ন থাকে ভক্তদের৷ বিক্রম বেশ বুঝে শুনেই উত্তর দেন৷

সম্প্রতি একজন লিখেছেন, বিক্রমের নাকি সেই জনপ্রিয়তাই নেই যার উপর ভিত্তি করে তিনি দর্শকদের সঙ্গে এইরকম ইন্টাব়্যাক্টিভ সেশন শুরু করবেন৷ আর এই কটাক্ষের জবাব বিক্রমও নরম সুরেই দিয়েছেন৷

পড়ুন: নতুন রাজত্বের পথে যিশু, রাজকীয় লুক দেখলে চমকে যাবেন

তিনি লিখেছেন, “আমায় যে ক’জন মানুষ ভালবাসে, আমার কাজ পছন্দ করে, তারা সারা মাস অপেক্ষা করে থাকে এই সেশনের জন্য৷ তাদের জন্যই আমি এটা করি৷ আর তারা যদি বলে এটা বন্ধ করে দিতে আমি বন্ধ করে দেব৷”

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.