শেখর দুবে, কলকাতা: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে হিন্দুত্ববাদীদের বিভিন্ন অভিযোগ থাকতেই পারে কিন্তু তার জমানাতেই বাংলায় রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সংঘের সদস্য সংখ্যা অনেকটা বেড়েছে ৷ তবে এই বৃদ্ধি সর্বোচ্চ আকার ধারণ করেছে নরেন্দ্র মোদী সরকার কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসার পর৷ ২০১৪ সালের পর থেকে বাংলায় আরএসএসের সদস্য সংখ্যা প্রায় ৪৫ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে৷ এমনটাই জানিয়েছেন বাংলা আরএসএস-এর এক শীর্ষ নেতা৷ যদিও তথ্য ঘাঁটলে এমনও মেলে, সংঘ পরিবারই মমতাকে একসময় দেবী দুর্গা হিসেবে কল্পনা করেছিল৷ তখন অবশ্য এনডিএ-তে ছিলেন তিনি৷

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই আরএসএস নেতার মতে, ‘‘ আগে রাজ্য জুড়ে আমাদের দৈনিক শাখা ছিল প্রায় ৮৫০টি৷ সেই সংখ্যাটাই বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২৫০-টিতে৷ সাপ্তাহিক শাখার সংখ্যাও বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭০০তে৷ কলকাতা, মেদিনীপুর , পশ্চিম বর্ধমান, উত্তর চব্বিশ পরগনা থেকে সবচেয়ে বেশি সংখ্যায় ছেলে মেয়েরা আরএসএস-এ যোগ দিয়েছেন৷’’

তিনি আরও জানান, ‘‘এই বছর সারা বাংলায় আরএসএস-এর প্রাথমিক শিক্ষা বর্গে প্রায় ১৯০০ যুবক যোগ দিয়েছিলেন৷ সংখ্যাটা আগের বছরগুলির তুলনায় অনেকটাই বেশি৷ প্রাথমিক বর্গে যোগদানকারী যুবকদের মধ্যে প্রায় ৪৫০জন অনলাইনে ‘‘জয়েন আরএসএস’’ প্রোগ্রামের মাধ্যমে যুক্ত হয়েছেন৷

বিশেষজ্ঞদের মতে, বাংলা সহ সারা ভারতে আরএসএস-এর সদস্য বৃদ্ধি পাওয়ার ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে ‘‘জয়েন আরএসএস’’ নামক অনলাইন প্রোগ্রামটির৷ সংগঠনটির ওয়েবসাইট থেকে জানা যাচ্ছে (১০ই নভেম্বর বিকেল ৪টে পর্যন্ত) যোগদানকারী সদস্য সংখ্যা ৫৯৮১৫৫জন৷ বাংলার এক সংঘ প্রচারকের মতে এই সংখ্যার প্রায় ২৪ শতাংশ বাংলা থেকে যুক্ত হয়েছেন৷

কী কারণে বাংলায় আরএসএস-এর এই বৃদ্ধি ? এর উত্তরে অনেক বিশেষজ্ঞই বাংলার সাম্প্রদায়িক মেরুকরণের রাজনীতিকে দায়ী করছেন৷ একাংশের যুক্তি, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকার সংখ্যালঘু ভোট ব্যাংক আয়ত্তে রাখতে গিয়ে সাধারণ হিন্দুদের মনে আশঙ্কা তৈরি করেছেন৷ অনেক হিন্দুই মনে করেছেন এই রাজনৈতিক ব্যবস্থায় তিনি বঞ্চিত৷ পাশাপাশি কেন্দ্রে মোদী সরকার থাকায় ইয়াং জেনারেশনের আগ্রহ তৈরি হয়েছে আরএসএস এবং বিজেপির প্রতি৷ সে কারণেই শেষ কয়েক বছরে বাংলা সহ সারা দেশেই বেড়েছে সংঘে যোগ দেওয়ার সদস্য সংখ্যা৷

তবে এই তথ্যের পাশাপাশি থাকছে আরও একটি পরিসংখ্যান৷ সম্প্রতি আরএসএসের অনুষ্ঠানে গিয়ে বিতর্ক তৈরি করেছিলেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়৷ তাঁর এই অনুষ্ঠানে যাওয়ার কথা আগে থেকে প্রচার করায় সংঘে যোগ দেওয়া সদস্য সংখ্যার হার বেড়েছিল অনেকটাই৷ কিন্তু পরে কিছুটা কমে সেই সংখ্যা৷